শুক্রবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৩০ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

শুভ জন্মদিন বীর মুক্তিযোদ্ধা আজিজুর রহমান



নিজস্ব প্রতিবেদক::

৭১ এর রণাঙ্গনের অকুতোভয় বীর সেনানী মাটি ও মানুষের নেতা আজিজুর রহমান তৎকালীন সিলেট জেলার অন্তর্গত দক্ষিণ সিলেট মহকুমার (বর্তমানে মৌলভীবাজার জেলা) গুজারাই গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে ১৯৪৩ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতার নাম মরহুম আব্দুল সত্তার, মাতার নাম কাঞ্চন বিবি। তিনি শ্রীনাথ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষাজীবন শুরু করেন। মৌলভীবাজার সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় হতে মাধ্যমিক ও মৌলভীবাজার সরকারি কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা গ্রহণ করেন।

উচ্চ শিক্ষার জন্য ঢাকা কলেজে ভর্তি হলেও শারীরিক অসুস্থতার কারণে হবিগঞ্জের বিখ্যাত বৃন্দাবন কলেজ হতে বি.কম ডিগ্রি অর্জন করেন। ছাত্র-জীবন হতেই তিনি সক্রিয় রাজনীতির সাথে জড়িত। ষাটের দশকে তিনি একজন তুখোড় সাংস্কৃতিক সংগঠক ও নাট্যব্যাক্তিত্ব থেকে বঙ্গবন্ধু আহবানে আওয়ামীলীগ এ যোগদান করে প্রথমে মহকুমা আওয়ামীলীগ এর সাধারন সম্পাদক হন। ১৯৭০ সালে নির্বাচনে মাত্র ২৭ বছর বয়সে গণপরিষদ সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ পাকিস্তানি বাহিনী তাকে প্রেফতার করে অমানুষিক নির্যাতন করে। পরে মুক্তিযোদ্ধারা সিলেটের জেল ভেঙ্গে তাঁকে মুক্ত করার পর তিনি ভারতে চলে যান, সেখানে সামরিক বাহিনীর বিশেষ ট্রেনিং নিয়ে মুক্তিযোদ্ধে সক্রিয় অংশগ্রহণ করেন। তিনি বঙ্গবন্ধুর ঘোষিত মহকুমা সংগ্রাম কমিটির অন্যতম নেতা ছিলেন।

১৯৭২ সনে বাংলাদেশের সংবিধানের স্বাক্ষরকারী হিসেবে দূর্লভ সম্মানের ও ইতিহাসের স্বাক্ষী হয়ে আছেন কালজয়ী এই মহান নেতা। তিনি ১৯৮৬ ও ১৯৯১ সনে অনুষ্ঠিত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তৃতীয় বারের মতো সংসদ সদস্য নির্বাচিত হোন। ১৯৯১ সালে জাতীয় সংসদের বিরোধী দলীয় হুইপ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। সে সময় সংবিধানের একাদশ ও দ্বাদশ সংশোধনীতে তিনি বিশেষ অবদান রাখেন। তিনি বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ মৌলভীবাজার জেলা শাখার দুই বারের সাধারণ সম্পাদক ও দুই বার সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।পরবর্তীতে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও পরবর্তীতে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এর দায়িত্ব পালনকরেন। বর্তমানে তিনি মৌলভীবাজার জেলায় ১৪ দল ও মহাজোটের সমন্বয়কারী হিসেবে দায়িত্বপ্রাপ্ত। অকৃতদার এই রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব, মৌলভীবাজার মহিলা কলেজ(বর্তমানে সরকারি) ও সৈয়দ শাহ্ মোস্তফা কলেজের প্রতিষ্ঠাকালীন সভাপতি হিসেবে শিক্ষা ক্ষেত্রে বিশেষ অবদান রাখেন। তিনি মৌলভীবাজর জেলার অন্যতম সাংস্কৃতিক সংগঠক।

সামাজিক কল্যাণমূলক প্রতিষ্ঠান রেডক্রিসেন্ট সোসাইটি মৌলভীবাজর শাখার চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্বরত আছেন। ২০শে ডিসেম্বর, ২০১১ স্থানীয় সরকার বিভাগের প্রজ্ঞাপনমূলে তিনি জেলা পরিষদ মৌলভীবাজারে প্রশাসক হিসেবে যোগদান করেন। পরবর্তীতে ২৮ ডিসেম্বর, ২০১৬ বাংলাদেশে প্রথমবার অনুষ্ঠিত জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে দায়িত্বরত আছেন। রাজনৈতিক বিভিন্ন উত্থানপতনে কখনও আদর্শচুত্য হননি এই সৎ, নির্লোভ, নিরহংকারী, আমাদের সকলের অভিভাবক, প্রবীণ রাজনীতিবিদ। ব্যাক্তি জীবনে চির কুমার এই রাজনৈতিক ব্যাক্তিতের কাছে দলই তাঁর ধ্যান, জ্ঞান এবং দলের কর্মী সাথীদের নিজ পরিবার বলে মনে করেন।

শত ঝড় ঝঞ্জায় বটবৃক্ষের ছায়ার মতো করে আগলে রেখেছেন আওয়ামী পরিবারকে পরম স্নেহ ভালবাসা ও মমতার পরশ দিয়ে। একজন সাদা মনের মানুষ আজিজুর রহমান আপনাদের বিশ্বাস আর ভালোবাসা তার শেষ সম্বল। সকলের দোয়া আর ভালোবাসায় জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত মানুষের কল্যাণে ব্রতী। মৌলভীবাজারের সকল মানুষের কাছে জনপ্রিয় এই নেতা,একাত্তরের বীর মুক্তিযোদ্ধা আজিজুর রহমান এর ৭৫ তম জন্মদিনে উনার সুস্বাস্থ্যে ও দীর্ঘায়ু কামনা করে আমার এই ক্ষুদ্র প্রয়াস, তাঁর প্রতি শ্রদ্ধা ও ভালবাসার অর্ঘ্য মাত্র। তথ্যগুলো নিশ্চিত করেছেন মৌলভীবাজার জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক অজয় সেন।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত