বৃহস্পতিবার, ২৪ জানুয়ারী ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ১১ মাঘ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

সুলতান মনসুরের গণসংযোগকালে পুলিশের বাধা



স্টাফ রিপোর্টার: জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের কেন্দ্রীয় নেতা ও মৌলভীবাজার-২ (কুলাউড়া) আসনের ধানের শীষের প্রার্থী সুলতান মোহাম্মদ মনসুর আহমদের গণসংযোগ কালে পুলিশি বাধার অভিযোগ উঠেছে। এসময় সুলতান মনসুর সমর্থকদের সাথে পুলিশের ধস্তাধস্তির ঘটনাও ঘটে। ২০ দলীয় জোটের নেতাকর্মীরা জানান গতকাল আমাদের সিডিউল অনুযায়ী নির্ধারিত গণসংযোগ ছিল রাউৎগাঁও ইউনিয়নে। আমাদের প্রার্থীর সাথে গণসংযোগ থাকা বিএনপি,অঙ্গসহযোগী সংগঠন ও ঐক্যফ্রন্টের নেতা-কর্মীদের উপর হঠাৎ করে পেছন থেকে এসে পুলিশ অকারনেই ব্যাপক লাঠিচার্জ করতে থাকে। পুলিশের এমন মারমুখি আচরনে আমাদের কর্মী সমর্থকরা ছত্রভঙ্গ হয়ে যান।

পুলিশের অর্তিকিত হামলায় এসময় বেশ কয়েকজন নেতা-কর্মী আহত হন। তবে পুলিশ বলছে গণসংযোগে নয় মোটরসাইকেল শোভাযাত্রায় তারা বাধা দিয়েছে। ধানের শীষের কর্মী সমর্থকদের অভিযোগ নৌকার প্রার্থী ঢালাও ভাবে মোটরসাইকেল শোভাযাত্রা বা মহড়া দিলেও তাদের কোন ভাবেই বাধা বা থামাচ্ছেনা পুলিশ। বরং উল্টো তাদের সহযোগিতা করছে। অথচ আমাদের শান্তিপূর্ণ গণসংযোগে এসে বাধার সৃষ্টি করছে। সোমবার (২৪ ডিসেম্বর) ২টার দিকে উপজেলার রাউৎগাঁও ইউনিয়নে পুরসাই এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। প্রত্যাক্ষদর্শীরা জানান ধানের শীষের প্রার্থী সুলতান মোহাম্মদ মনসুর আহমদের সমর্থকরা রাউৎগাঁও ইউনিয়নের পুরসাইবাজার থেকে গণসংযোগ করে সামনে আগালে হঠাৎ পুলিশ এসে বাধা দিয়ে লাঠিচার্জও করতে থাকে। একপর্যায়ে পুলিশ সুলতান মনসুরের ব্যাক্তিগত সহকারী শাহিদুর রহমান সাহেদকে ঝাপটে ধরে পুলিশের গাড়িতে উঠানোর চেষ্ঠা করে। এসময় পুলিশ তার সাথে ধ্বস্তাধ্বস্তিতে জড়িয়ে পড়ে। পুলিশ সুলতান মনসুরের সাথে থাকা ফটো সাংবাদিক আব্দুর রহমানের ক্যামেরা ছিনিয়ে নিয়ে তাকেও হেনেস্তা করে। তখন উপস্থিত কর্মী সর্মথক ও স্থানীয় মানুষের আর্তচিৎকারে ভিতিকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। সড়কে যান চলাচলও বন্ধ হয়ে যায়। পুলিশ সুলতান মনসুরের গণসংযোগে বাধা দিচ্ছে এমন খবর ছড়িয়ে পড়লে ওই এলাকা জুড়ে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। স্থানীয় কয়েকটি গ্রামের লোকজন (পুরুষ-মহিলা) জড়ো হয়ে রাস্তায় নেমে আসে এবং এই ঘটনার প্রতিবাদ জানায়।

সুলতান মোহাম্মদ মনসুর আহমদ ও সাবেক এমপি নওয়াব আলী আব্বাস খান স্থানীয় জনতাকে শান্ত হতে অনুরোধ জানালে তারা রাস্তা থেকে সরে যায়। পরে জনতার উত্তাল দেখে পুলিশও পিছু হঠে। এই ঘটনার পর ওই এলাকা থেকে বেশ কয়েকটি মোটরসাইকেল আটক করে থানায় নিয়ে আসে পুলিশ। এই ঘটনার পর সেখানে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়। এ বিষয়ে কুলাউড়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শামীম মূসা বলেন-‘একটি গোলযোগের চেষ্টার খবর পেয়ে পুলিশ সদস্যরা রাউৎগাঁও এলাকায় অবস্থান নেয়। এসময় উনার (সুলতান মনসুর) বডিগার্ড, সমর্থকরা পুলিশ সদস্যদের উপর চড়াও হয়। পরিস্থিতি শান্ত রাখতে অতিরিক্তি পুলিশ মোতায়ন করা হয়েছে।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত