বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৬ আষাঢ় ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

মঙ্গল গ্রহের বাড়ি?



ডেস্ক রিপোর্টঃ

বিজ্ঞানীরা বলছেন, মঙ্গলই হতে পারে আমাদের ভবিষ্যতের ঠিকানা। সেখানে বসতি তৈরির প্রস্তুতিও শুরু হয়ে গেছে। বিভিন্ন দেশের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা মিলে ‘মার্স ওয়ান প্রজেক্ট’র কাজ শুরু করেছে। এর আওতায় ২০৩২ সালের মধ্যে মঙ্গলগ্রহে উপনিবেশ গড়ার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। ঘর-বাড়ি, প্রয়োজনীয় সুযোগ সুবিধাসহ ছোট ছোট এলাকা গড়ে তোলা হবে। দফায় দফায় সেখানে পাঠানো হবে মহাকাশচারীদের। দেখা হবে, পৃথিবীর মতো সেখানেও সাধারণ জীবন যাপন করা সম্ভব কি না।

প্রতিকূল পরিস্থিতি সামলাতে কাজ শুরু করেছে নিউইয়র্কের এআই স্পেস ফ্যাক্টরি সংস্থা। মঙ্গলের আবহাওয়ার সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে কেমন ঘর-বাড়ি তৈরি করা যায়, তার পরিকল্পনা শুরু করেছেন সংস্থার ইঞ্জিনিয়ার এবং আর্কিটেক্টরা।

থ্রিডি প্রিন্ট প্রযুক্তির সাহায্যে সম্প্রতি কিছু ডিজাইন সামনে এনেছেন তারা, সেখানে মঙ্গলে জীবন-যাত্রা কেমন হতে পারে, সে ব্যাপারে ধারণা মিলেছে। চারজন মহাকাশচারী থাকার উপযুক্ত এক একটি বাড়ির ডিজাইন তৈরি করা হয়েছে। প্রয়োজনে এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় সরিয়ে নিয়ে যাওয়া যাবে সেগুলোকে।

কয়েকটি বাড়ি দেখতে খানিকটা মাটির তৈরি উল্টোনো ফুলদানির মতো। তবে চকচকে। ধূলো ঝড় ও রুক্ষ আবহাওয়ায় কোন ক্ষতি হবে না। উচ্চতা বেশি হওয়ায় জায়গা মিলবে অনেকটা। ল্যাব, রান্নাঘর, শোওয়ার ঘর সমেত সংসার সাজিয়ে দেওয়া হবে মহাকাশচারীদের।

মঙ্গলে মহাকাশচারীদের বাড়িগুলিতে একতলা থেকে দোতলায় যেতে গেলে মাকড়শার জালের মতো পথ দিয়ে যেতে হবে। সেগুলো তৈরি করা হবে ব্যাসল্ট ফাইবার দিয়ে। কিছু বাড়ি আবার অর্ধেক ভাঙা ডিমের খোসার মতো দেখতে। ব্যাসল্ট শিলা এবং পুনর্নবীকরণযোগ্য বায়োপ্লাস্টিক দিয়ে বাড়িগুলো তৈরি করা সম্ভব। বাইরে এবং ভিতরে দু’টি আলাদা আবরণ থাকবে। ভিতরে সবরকম আধুনিক সুযোগ-সুবিধা মিলবে।

দিনের বেলা জানলা দিয়ে সূর্যের আলো এসে পড়বে ঘরে। আবার সূর্যের আলোকে কাজে লাগিয়েই ল্যাবের কাজকর্ম সারা হবে। রান্নাও হবে সৌরশক্তির মাধ্যমে। চাইলে গাছপালাও লাগাতে পারবেন মহাকাশচারীরা। ফলাতে পারবেন শাক-সবজি। তার জন্য ঘোরানো সিঁড়ি দিয়ে বাগানে নেমে আসতে হবে।

বুদবুদের মতো দেখতে একটি বাড়িও মঙ্গলে পাঠানোর পরিকল্পনা রয়েছে। সেটি তেজস্ক্রিয় বিকিরণ প্রতিরোধ করতে সক্ষম। মঙ্গলের মাটিতে প্রচুর পরিমাণ আয়রন-অক্সাইড রয়েছে। সেই মাটি ব্যবহার করে এই বাড়িতে বাগান তৈরি করা যাবে। থাকবে পানি মজুতের ব্যবস্থাও।

ইগলুর অনুকরণে মঙ্গলে বরফের তৈরি বাড়িই বসবাসের আদর্শ জায়গা বলে মত বিজ্ঞানীদের। কারণ মঙ্গলে মাটির তলায় প্রচুর বরফ রয়েছে। তাই বাড়ি তৈরির উপাদানে ঘাটতি দেখা দেবে না। আবার বরফ তেজস্ক্রিয় বিকিরণ প্রতিরোধেও সক্ষম।

মঙ্গলের মাটিতে ষড়ভুজাকৃতি বাড়িও মন্দ লাগবে না বলে ধারণা বিজ্ঞানীদের। দেড় হাজার বর্গফুট জায়গাতেই হয়ে যাবে এই বাড়ি। চাপ ও গ্যাসের ভারসাম্য রাখতে বাড়ির ছাদটি খোলা বা বন্ধ করা যাবে। ডিজাইনগুলেঅ পছন্দ হয়েছে মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসার।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত