সোমবার, ২০ মে ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

আরব আমিরাতে বাংলাদেশী কমিউনিটির উদ্যোগে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত



ডিএমবি ডেস্কঃ

আরব আমিরাতের পূর্ব ঊপকূলীয় অঞ্চলের মাসাফিতে স্থানীয় সাংস্কৃতি ও জ্ঞান উন্নয়ন মন্ত্রনালয়ের সভাকক্ষে বাংলাদেশী প্রবাসীদের আয়োজনে ২১ শে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ও শহিদ দিবস উপলক্ষে ২৮ ফেব্রুয়ারী আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।

অনুষ্টান পরিচালনায় সভাপতিত্ব করেন মোঃ মোক্তার মিয়া উপস্থাপনা করেন সানজিদা ইসলাম। পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত এর মাধ্যমে অনুষ্ঠানের শুরু হয় আরব আমিরাত ও বাংলাদেশ উভয় দেশের জাতীয় সংঙ্গীত উপস্থাপনে সম্মান প্রদর্শন করা হয়।
শুরুতে আরবী ভাষায় শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন রাহমা মোক্তার প্রমি এবং রাহিমা মোক্তার হিমি।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সাংস্কৃতি ও জ্ঞান উন্নয়ন মন্ত্রনালয়ের কর্ম কর্তা মহাম্মদ ছেইপ আল জাহাবী। অনুষ্ঠানের সার্বিক তত্বাবধানে ছিলেন সাংস্কৃতি ও জ্ঞান উন্নয়ন মন্ত্রনালয়ের উর্ধতন কর্মকর্তা ইব্রাহীম আস শামসী।

বিশেষ অতিথি ছিলেন হাজী শফিকুল ইসলাম সফিক, মোঃ আব্দুল মতিন, আব্দুস ছামাদ আজাদ, হুমায়ুন কবির, রহমত আলী ও কামরুল হাসান পাপলু।

স্থানীয় সাংস্কৃতি ও জ্ঞান উন্নয়ন মন্ত্রনালয় মাসাফি শাখার পক্ষ থেকে বিশেষ অতিথীদেরকে সম্মাননা সনদ প্রদান করা হয়। সঙ্গীত পরিবেশন করেন সম্পা সফিক ও অন্তরে বাউল গ্রুপ উল্লেখ যোগ্য। জাদু ম্যাজিক পরিবেশন করে আনন্দে পরিপূর্ন করে তুলেন জাদু শিল্পি মো: সানোয়ার। অনুষ্ঠানে বিপুল সংখ্যক বাংলাদেশী প্রবাসী ও কমিউনিটির ব্যক্তিত্ব স্বপরিবারে উপস্থিত ছিলেন। উপস্থিত ছিলেন আরব আমিরাতের প্রশাষন ও গনমাধ্যম কর্মী সহ স্থানীয় লোকজন মিশর,সিরিয়া ও ভারত সহ বিভিন্ন কমিউনিটির আরব আমিরাত প্রবাসী।

বিশেষ করে কমিউনিটির প্রধান মোঃ মুক্তার মিয়া বলেনঃ আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন করা হবে প্রকাশ্যে আন্তর্জাতিক মান বজায় রেখে।নয় চায়ের দোকান পার্ক বা যোপে জংজ্ঞলে।

এতে বাংলাদেশী নাগরিক নামের কলংক্ক স্বাধীনতা বিরধী দেশদ্রোহী মানবতা বিরোধীরা মধ্যপ্রচ্যে স্বক্রিয় রয়েছে বেশ অর্থশালীও প্রভাবশালী আন্তর্জাতিক নেটওয়ার্কে নানান ধরনের মানব কল্যাণ দাতা নামে পরিচিত। আওয়ামী হাইব্রীড নেতাদের তাবেদারীতে ওরা ধরা ছোয়ার বাহিরে অবস্থান করছে।

নানা প্রতিবন্ধকতা সৃস্টি করিতে চেয়েছিল প্রকাশ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সংস্কৃতি মন্ত্রনালয়কে শিক্ষা মন্ত্রনালয় বানায়েছে। ভুল সংবাদ পরিবেশন করে স্থানীয় আইন কানুন পরিপন্থী অনুষ্টান গুজব হিসাবে চালিয়েছিল। নানান ছুরতে এত সুন্দর অনুষ্টানঙ্কে বিক্রৃত করে বতর্কিত যামেলা সৃষ্টি করে সুদুর প্রবাসেও আমাদের ঐতিহ্যকে দাবিয়ে রাখার সব ধরনের চেষ্টা অব্যাহত রাখছে। কিন্ত আমাদের পুর্ব সতর্কতাহেতু স্থানীয় প্রশাসনের সচেতনার কারনে সুবিধা করে উঠতে পারে নি।সারা দুনিয়ার মানুষ আমাদের ২১ মাতৃভাষার সম্মানে স্বক্রিয় সচেতন। আর আমাদের বাংলাদেশের নাগরিক হয়ে দেশর ভাবমুর্তী ক্ষুন্ন করিতেছে অথছ আমাদের বাংলাদেশের নাগরিক সব সুযোগ সুবিধা উপভোগ করিতেছে।

অতএব, বাংলাদেশ পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয়কে সবিনয় অনুরুধ/প্রার্থনা যে অতি সত্তর এই সমস্ত রাজাকারদেরকে চিহ্নিত করে দ্রুত আইনের আওতায় এনে আইন সৃংখ্যলা বাহিনীর হাতে তুলে দেওয়ার ব্যাবস্থা নিবেন। যাতে সাধারন নাগরিক প্রবাসেও আমরা মাননীয় প্রধান মন্ত্রীর দেওয়া ম্যাসেজ গুরুত্ব সহকারে পালন করে প্রবাসের বুকে আমাদের ছোট্ট দেশটার ইজ্জত ধরে রাখতে পারি।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত