শনিবার, ২৪ অগাস্ট ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

হারানো জৌলুস পোটিয়ার্স মাঠেই ফিরল



মুবিন খান::

একসময় জৌলুস ছিল আবার তা ফিরল। ঐতিহ্যবাহী রাজনগর উপজেলার পোটিয়ার্স মাঠ আবারও সরব। মাঠে গড়াল আরপিএল। ক্রিকেটকে হারিয়েও আবার ফিরে পেল রাজনগরবাসী।

এক সময় রাজনগরে অসাধারণ ক্রিকেট খেলা ছিলো। মৌলভীবাজার জেলা সহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় বিভিন্ন টুর্ণামেন্টে রাজনগরের ক্রিকেট খেলোয়াররা দারুণ উৎকর্ষ অর্জন করেছে। ক্রিকেট নিয়ে রাজনগরে উচ্ছ্বাসের কমতি নেই। আর হবেই না বা কেন? ২০১১ সাল থেকে এই উপজেলার কিছু প্রতিভাবান ক্রিকেটারদের নিয়ে শুরু হয় রাজনগর প্রিমিয়ার লীগ (আরপিএল)।
শুরু থেকেই যাকযমক ভাবে আরপিএল এর সূচনা হয়। প্রথম টুর্ণামেন্ট থেকেই আলোচিত হয় আরপিএল। আর অরপিএল এ অংশগ্রহনের জন্য প্রতিটি এলাকায় গড়ে উঠে উদিয়মান কিছু ক্রিকেটার।

রাজনগরে যেটা কখনও হয় নি আগে। মৌলভীবাজার শহরে দুই একটি ছাড়া লীগের খেলা হতো না তেমন। আরপিএল যখন রাজনগরে সবার দ্বারে পৌছালো তখন গঠিত হলো রাজনগর ক্রিকেট প্লেয়ার্স এসোসিয়েশন। তারপর থেকেই ক্রিকেট প্লেয়ারর্স এর আয়োজনে রাজনগরে আরপিএল শুরু হতো। ছোট, বড়, বৃদ্ধ সবাই আসতো খেলা উপভোগ করার জন্য। আর এই টুর্ণামেন্টের প্রধান ভেন্যু ছিলো রাজনগর পোটিয়ার্স মডেল উচ্চ বিদ্যালয় মাঠ।

২০১৬ সাল থেকে বন্ধ হয়ে যায় আরপিএল। জীবনের তাগিদে তখন প্রবাসে চলে যান রাজনগরের ক্রিকেট নায়ক মুশাহিদ খান বাবু। মূলত উনার উদ্যেগে এই টুর্ণামেন্ট চলতো। ২০১৫ সালে শেষ আরপিএল টুর্ণামেন্টের প্রধান চমক ছিলো বাংলাদেশ জাতীয় দলের তিন ক্রিকেটার আবুল হাসান রাজু, নাজমুল হোসেন, তাপস বৈশ্য। তারপর থেকে প্রায় মৃত ছিলো রাজনগরের ক্রিকেট। ভালো ভালো সব খেলোয়াররা ধীরে ধীরে অবসর নেওয়া শুরু করেন। সবাই ভুলতে থাকে উচ্ছ্বাসীত রাজনগরের সেই ক্রিকেট টুর্ণামেন্টকে।

সোমবার থেকে আবার জীবিত হয়েছে রাজনগর ক্রিকেট প্লেয়ারর্স এসোসিয়েশন। শুরু হচ্ছে আবার আরপিএল। দেশে ফিরেছেন রাজনগরের ক্রিকেটার বাবু। আরপিএল এর প্রস্তুতি টুর্ণামেন্ট উদ্বোধন হয়েছে আজকেই। রাজনগর পোর্টিয়াস মডেল উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে উদ্বোধন হয়েছে আরপিএল টি-১০ সুপার কাপ-২০১৯। এতে বলতে গেলে রাজনগরে ক্রিকেটের প্রাণ ফিরে পাচ্ছে। সঙ্গে উপজেলা জুড়ে অগণিত ক্রিকেট সমর্থকদের খেলা দেখার সুযোগ তৈরি হচ্ছে। ক্রিকেট উপজেলার কোণায় কোণায় ছড়িয়ে যাক এই আশা করবে না এমন সমর্থক পাওয়া যাবে না।

সোমবার রাজনগরের সাবেক কৃতি ফুটবলার শাহ পাভলুর সভাপতিত্বে¡ ও ক্রিকেট প্লেয়ারর্স এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মুশাহিদ খান বাবুর পরিচালনায় উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন রাজনগর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাহজাহান খান।

খেলা উদ্বোধন করেন- রাজনগর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মিছবাহুদ্দোজা ভেলাই। বিশেষ অতিথি ছিলেন রাজনগর সদর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান দেওয়ান খয়রুল মজিদ ছালেক, রাজনগর পোটিয়ার্স মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. জিল্লুর রহমান, রাজনগন ক্রিকেট প্লেয়ারর্স এসোসিয়েশনের সভাপতি মো. জহিরুল ইসলাম, প্রবীন মুরব্বী খয়ের খান মাষ্টার, সাবেক কৃতি ক্রিকেটার পাপলু খান প্রমুখ।

প্রথম দিনে মোট ৪ টি খেলা অনুষ্টিত হয়। উদ্বোধনী ম্যাচে প্রতিদ্বন্দী করে আশার আলো স্পোটিং ক্লাব, সালন বনাম এইচ ডি ইউনাইটেড ক্লাব, হংশখলা। খেলায় এইচ ডি ইউনাইটেড কে ৭৭ রানের বিশাল ব্যবধানে হারিয়ে আশার আলো স্পোটিং ক্লাব জয়ী হয়। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ রান করেন রাসেল (১০৫)। তারপর এইদিনে আরো তিন ম্যাচ অনুষ্টিত হয়।

রাজনগর ক্রিকেট প্লেয়ারর্স এসোসিয়েশনের সভাপতি জহিরুল ইসলাম বলেন, “আজ ক্রিকেটে আমরা উৎকর্ষ অর্জন করেছি ঠিকই, কিন্তু অন্য খেলা একরকম হারিয়ে গেছে। সে দিকে কিন্তু আমাদের নজর নেই। একই সঙ্গে, খেলার ভেতরকার প্রাণটাই যেন হারিয়ে গেছে। গ্রামের মানুষ এখন আর আনন্দ নিয়ে মাঠে খেলতে বা খেলা দেখতে যায় না। যারা খেলে, তারা এটাকে পেশা হিসেবে নিয়েই খেলে”।

তিনি কলেন, “আর যারা খেলে না, তারা একবারেই খেলে না। খেলার সঙ্গে প্রাণের যোগটা এখন আর নেই। এই প্রজন্মের বিনোদন হচ্ছে মোবাইল ফোন ও ইন্টারনেট। তারা খেলার মাঠ থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছে। এটার সামাজিক কুফল কিন্তু দিনকে দিন বাড়ছে, আমরা কি সেটা ভেবে দেখছি”।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত