শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ শ্রাবণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

সংসদে সুলতান মনসুরের আফসোস



ডিএমবি ডেস্ক ::

সরকারি দলে না থাকতে পেরে সংসদে আফসোস প্রকাশ করেছেন ধানের শীষ নিয়ে নির্বাচন করা গণফোরাম নেতা সুলতান মোহাম্মদ মনসুর। সংসদে সরকারি দলের এমপিদের বসার জায়গা দেখিয়ে তিনি বলেছেন, আমার তো এখানে থাকার কথা নয়, ওইদিকে থাকার কথা ছিল। ভাগ্যের নির্মম পরিহাস ২০০৮ সাল থেকে আমি বাইরে।

রোববার সংসদে ২০১৯-২০ সালের প্রস্তাবিত বাজেটের ওপর সাধারণ আলোচনায় অংশ নিয়ে একথা বলেন তিনি।

তিনি বলেন, এ সংসদ নিয়ে যে সন্দেহ উদ্বেগের কথা বলা হয়েছিল, বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছিল, ঠিক তেমনিভাবে নির্বাচন নিয়েও সেরকম প্রচারণা থাকতো- যদি সেদিন আমি সংসদ সদস্য হিসিবে শপথ না নিতাম। গত ৭ মার্চ আমি সংসদ সদস্য হিসেবে শপথ না নিলে আজ বিএনপির এমপিরা শপথ নিতেন না। এজন্য আমি যে সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম সেটা সঠিক ছিল।

এতদিন সরকারের দলের হয়ে সংসদে না আসতে পারায় দুঃখ প্রকাশ করে তিনি বলেন, সেই অজানা ইতিহাস বলতে পারছি না। আজকের সংসদ নেত্রী তিনি আমাকে ছাত্রলীগের সভাপতি বানিয়েছিলেন। আমাকে ডাকসুর ভিপি বানিয়েছিলেন। দেশের এমন কোনো জেলা নেই বঙ্গবন্ধু রাজনীতির জন্য আমি যাইনি। এমনকি ৭০ ভাগেরও বেশি উপজেলায় বঙ্গবন্ধুর পক্ষে রাজনীতি করেছি। সেই অজানা তথ্য এখনও রয়ে গেছে । সঙ্গীত শিল্পী আব্দুল জব্বারের একটি গান আছে, এই যে দুনিয়া, কিসেরও লাগিয়া/ এত যত্নে বানিয়েছেন সাঁই/ তুমি হাকিম হইয়া হুকুম কর পুলিশ হইয়া ধরো / সর্প হইয়া দংশন করো/ ওঝা হইয়া ঝাড়।

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশের রাজনীতিতে স্বাধীনতার পরে এই যে প্রক্রিয়া শুরু হয়েছিল আমি মনে করি ২০০৮ সালের পর থেকে আমিও সেই প্রক্রিয়া ও ষড়যন্ত্রের শিকার হচ্ছিলাম। আমি জাতীয় ঐক্যের জন্য বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহচর ড. কামাল হোসেনের ঐক্য প্রক্রিয়ার সঙ্গে যুক্ত ছিলাম। আওয়ামী লীগ আমাকে বহিষ্কারও করেনি, আমি আওয়ামী লীগ ছাড়িওনি।

ঘুষ লেনদেন সম্পর্কে তিনি বলেন, আসুন আমরা সবাই শপথ করি। একটা জায়গা থেকে বা যে কোন একটি মন্ত্রণালয় থেকে শুরু করেন। আমরা সবাই শপথ নেব। সেখানে প্রধানমন্ত্রীর নীতি বাস্তবায়ন করব। যে ঘুষ খাবে আর যে ঘুষ দেবে তার বিরুদ্ধে শাস্তি হবে। আসুন আমরা এটি শপথ গ্রহণ করি।

সৌজন্যে : জাগোনিউজ২৪

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত