শনিবার, ২৪ অগাস্ট ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

এবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়ানো হচ্ছে ‘বিদ্যুৎ’ নিয়ে গুজব



ডিএমবি ডেস্ক::

দেশে বিদ্যুৎ থাকবে না বলে গুজব রটাচ্ছে একটি স্বার্থান্বেষী মহল। আর এমন গুজব থেকে বিরত ও সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়েছেন বিদ্যুৎ বিভাগের সিনিয়র সচিব ড. আহমদ কায়কাউস। বুধবার রাজধানীর বিদ্যুৎ ভবনে এক চুক্তি সই অনুষ্ঠানে তিনি এসব বলেন।

ড. আহমদ কায়কাউস বলেন, সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একটি গুজব ছড়িয়ে পড়েছে। সেখানে নির্দিষ্ট কোনও দিনের কথা উল্লেখ করে বলা হচ্ছে যে ‘ওইদিন বিদ্যুৎ থাকবে না এবং পদ্মা সেতুর জন্য মাথা কেটে নিয়ে যাবে।’
আমরা এ ধরনের গুজবে কান না দিতে জনসাধারণের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।
তিনি বলেন, আমরা এও আশ্বস্ত করতে চাই, এ ধরনের ঘটনা ঘটবে না। এটি একটি গুজব। যারা এ ধরনের গুজব ছড়াচ্ছেন তারা গর্হিত কাজ করছেন। আমাদের বিদ্যুৎ পরিস্থিতি নিরবচ্ছিন্ন থাকবে। একটি স্বার্থান্বেষী মহল এই গুজব ছড়াচ্ছে।

তিনি আরও জানান, চাহিদার বিপরীতে আজ ১১৬৪০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হয়েছে। কোথাও লোডশেডিং ছিল না। আজ বা আগামীকাল অন্যান্য দিনও চাহিদানুযায়ী বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হবে। দেশে বন্যা সত্ত্বেও তেমনভাবে বিদ্যুৎ সরবরাহ বিঘ্নিত হচ্ছে না; আগামীতেও বিদ্যুৎ সরবরাহে কোন সমস্যা হবে না।

বিদ্যুৎ বিভাগের সিনিয়র সচিব জানান, স্বাভাবিকভাবেই একসঙ্গে সারাদেশের বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ করা যায় না। বড় বড় বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলো একবার বন্ধ করা হলে চালু হতে অনেক সময় এক থেকে দু’দিন সময় লেগে যায়। তবে বিশেষ পরিস্থিতিতে কোনও যান্ত্রিক গোলযোগ ঘটলে একসঙ্গে সারাদেশের বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ হয়ে যেতে পারে। ২০১৪ সালের ৩ নভেম্বর এবং ২০০৮ সালের সিডরের সময় সারাদেশে ব্ল্যাক আউটের ঘটনা ঘটে। এছাড়া সারাদেশে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ থাকার কোন রেকর্ড নেই।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত