বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ২৯ কার্তিক ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

অবশেষে চালু হল মৌলভীবাজার পাবলিক লাইব্রেরী



নিজস্ব প্রতিবেদক ::

দীর্ঘদিন ৪ মাস ধরে বন্ধ ছিল মৌলভীবাজার পাবলিক লাইব্রেরী। অবশেষে হলো সাধারণ সভা। বন্ধ থাকা পাবলিক লাইব্রেরী পুনরায় চালু হবে বুধবার থেকেই। এমন সিদ্ধান্ত নেয়া হল।

মঙ্গলবার রাতে সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভাপতিত্ব করেন মৌলভীবাজারের জেলা প্রশাসক ও পাবলিক লাইব্রেরীর সভাপতি নাজিয়া শিরিন। সভা শেষেই সকলের মতামতের ভিত্তিতে এই সিদ্ধান্তের ঘোষণা দেন।

এছাড়া আগামী তিন মাসের জন্য সাত সদস্য বিশিষ্ট এডহক কমিটি গঠন করা হয়। কমিটির আহবায়ক জেলা প্রশাসক ও সদস্য সচিব এডভোকেট কিশোরী পদ দেব শ্যামল।

অন্যান্য সদস্যরা হলেন- জেলা পরিষদের সদস্য একজন, জেলা আওয়ামী লীগ সহ-সভাপতি মসুদ আহমদ, ডা. এ কে জিল্লুল হক, প্রেসক্লাব সভাপতি আবদুল হামিদ মাহবুব ও সৈয়দ শাহেদ আহমদ।

সাধারণ সভায় বক্তব্য রাখেন- মৌলভীবাজার ৩ আসনের সংসদ সদস্য নেছার আহমদ, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. আজিজুর রহমান, এডভোকেট মুজিবুর রহমান মুজিব, কিশোরী পদ দেব শ্যামল, বকসি ইকবাল আহমদ, ফয়জুল করিম ময়ূন, মসুদ আহমদ, ডা. এ কে জিল্লুল হক, আব্দুল মতিন, আ.স.ম সালেহ সোহেল, পুলক কান্তি ধর প্রমুখ।
এসময় বক্তারা বলেন, “যাদের কারণে লাইব্রেরীটি বন্ধ হয়েছে সেই বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে যাতে পুনরায় প্রতিষ্ঠানটি বন্ধ না হয়। ১৯৫৬ সালে প্রতিষ্ঠিত লাইব্রেরীতে বর্তমানে ১২ হাজার বই রয়েছে। তবে ১৯৭০ সালের মুক্তিযুদ্ধ ও ১৯৮৪ সালের ভয়াবহ বন্যার কবলে পড়ে অনেক মূল্যবান বই নষ্ট হয়ে গেছে”।

সভায় গঠনতন্ত্রের সংশোধন, লাইব্রেরীর সদস্য সংখ্যা বৃদ্ধি করা, ইলেকট্রিসিটি বিল, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা, পত্রিকার বিল প্রদান, এসি চালু, লাইব্রেরীর আয়ের উৎস্য বাড়ানোসহ লাইব্রেরী চালু রাখার বিষয়েও আলোচনা হয়।

উল্লেখ্য, ৫২’র ঐতিহাসিক ভাষা আন্দোলনের ৪ বছর পর অর্থাৎ ১৯৫৬ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় মৌলভীবাজার পাবলিক লাইব্রেরী। ষাট বছরের বেশি সময় ধরে এ লাইব্রেরী মৌলভীবাজারের মুক্তবুদ্ধি ও শিল্প সাহিত্য চর্চার অনন্য কেন্দ্রস্থল হিসেবে ভুমিকা পালন করছে যুগ যুগ ধরে। এই জনপদের হাজার হাজার মানুষের কৈশর, শিক্ষা জীবন ও কর্মজীবনের নানান সময়ের স্মৃতিঘেরা এই লাইব্রেরীটি।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত