বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ২৯ কার্তিক ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

লোহা হাতুড়ির টুং টাং শব্দে ব্যস্ত সময়



সাইফুল্লাহ হাসান :: 

সামনেই পবিত্র ঈদুল আজহা। তাই মৌলভীবাজারে ব্যস্ত সময় পার করছেন কামারররা। কামারপাড়ায় এখন লোহা হাতুড়ির টুং টাং শব্দ। পুড়ছে কয়লা, জ্বলছে লোহা। তার উপর আবার হাতুড়ির আঘাত। তাতে তৈরী হয় দৈনন্দিন জীবনে কাজের উপযুক্ত দ্রব্য সামগ্রী, দা, বটি, চাকু, কুড়াল, ছুরি, চাপাতিসহ ধারালো জিনিস।

আর কিছুদিন পরেই উদযাপিত হবে মুসলমানদের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব পবিত্র ঈদুল আজহা বা কোরবানির ঈদ। ঈদকে সামনে রেখে টুং টাং আওয়াজে ব্যস্ত সময় পার করছেন মৌলভীবাজারের কামাররা। সারা বছর কাজ সীমিত থাকলেও কোরবানির ঈদ আসলেই বেড়ে যায় তাদের কর্মব্যস্ততা।

কামারপাড়ায় দা-ছুরি বিক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, চাকু প্রতি পিছ ৫০-৮০ টাকা। দা ৪০০-৫০০ টাকা। চাপাতি ৩০০-৪০০ টাকা। বটি ২০০- ২৫০। পুরনো যন্ত্রপাতি শান দিতে ১০০ থেকে ১৫০ টাকা পর্যন্ত নেওয়া হচ্ছে। শহরের ঘুরে দেখা যায়, সকাল থেকে রাত পর্যন্ত একটানা কজ করে যাচ্ছেন কামাররা।

কারিগর কমলাকান্ত দেব বলেন, “স্বাভাবিকভাবে এ ঈদ এলে আমাদের কাজের ব্যস্ততা বেড়ে যায়। সকাল ৯ টা থেকে রাত ১২ টা, ১ টা পর্যন্ত একটানা কাজ করতে হয়। ক্রেতাদেরও কমতি নেই। একটু বেশি আয়ের উদ্দেশ্যে দিন-রাত পরিশ্রম করতে হয় আমাদের”।

শহরের দা-ছুরি দোকানের কর্মচারি রনু চন্দ্র দেব জানান, “ঈদ আইছে তাই অনেক ব্যস্ত। আমরা কিভাবে পরিবার নিয়ে চলি। মাজনের সারাদিনে পাঁচশত টাকা রুজি হলে আমাদেরক কত টাকাই দিবেন..!”।

গরু জবাইয়ের চাককু কিনতে আসা বশির মিয়া বলেন, “আগে সময় করতে পারিনি যে চাকু কিনবো। তাই ভালো দেখে একটা চাকু নিলাম। অন্য সময়ের তুলনায় ঐসবের দাম একটু বেশি রাখছে কামাররা”।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত