বৃহস্পতিবার, ১২ অগাস্ট ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ২৮ শ্রাবণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Sex Cams

শোকাবহ আগষ্ট মাসে বঙ্গবন্ধু ডিপ্লোমা প্রকৌশলী পরিষদের নেতৃবৃন্দকে নিয়ে ইউ কে বিডির ভার্চুয়াল আলোচনার অনুষ্টান শোকার্ত হৃদয়ের শ্রদ্ধা অনুষ্টিত।দোষীদের ও তাদের মদতদাতাদেরকে বিচারের আওতায় আনার দাবী ।



ছায়ফুল আলম লেমন : শোকাবহ আগষ্ট মাসে ইউ কে

বিডি টিভির
মাসব্যাপি ভার্চুয়াল আলোচনার অনুষ্টান শোকার্ত হৃদয়ের শ্রদ্ধায় বঙ্গবন্ধু ডিপ্লোমা প্রকৌশলী পরিষদের নেতৃবৃন্দকে নিয়ে আলোচনা সভা গত মঙ্গলবার দেশ বিদেশের প্রকৌশলী প্রতিনিধিদের নিয়ে অনুষ্টিত হয়েছে। বঙ্গবন্ধু ডিপ্লোমা প্রকৌশলী পরিষদ যুক্তরাজ্য শাখার
সভাপতি ইন্জিনিয়ার হারুন -অর- রশীদ
এর সভাপতিত্বে , বঙ্গবন্ধু ডিপ্লোমা প্রকৌশলী পরিষদ যুক্তরাজ্য শাখার যুগ্ম সাধারন সম্পাদক ও ইউ কে
বিডি টিভির ম্যানেজিং ডাইরেক্টর ইন্জিনিয়ার খায়রুল আলম লিংকন এর পরিচালনায় অনুষ্ঠিত ভার্চ্যুয়াল আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বঙ্গবন্ধু ডিপ্লোমা প্রকৌশলী পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা ইন্জিনিয়ার খবির হোসেন, প্রধান বক্তা বঙ্গবন্ধু ডিপ্লোমা প্রকৌশলী পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারন সম্পাদক বীরমুক্তিযোদ্ধা ইন্জিনিয়ার আব্দুল মোতালেব, বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য প্রদান করেন ইউকে বিডি টিভির চেয়ারম্যান ও যুক্তরাজ্য আওয়ামীলীগ এর অন্যতম সদস্য ওয়েলস আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ সভাপতি মোহাম্মদ মকিস মনসুর, বংগবন্ধু ডিপ্লোমা প্রকৌশলী পরিষদ যুক্তরাজ্য শাখার জেনারেল সেক্রেটারি ইঞ্জিনিয়ার শিহাব উদ্দিন, ইন্জিনিয়ার আতিকুর রহমান সুহেদ, সিলেট পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট এর সাবেক ভিপি ইন্জিনিয়ার সারোয়ার হোসেন বেনু, ইন্জিনিয়ার কামরুজ্জামান নয়ন প্রমুখ।
অনুষ্ঠানের শুরুতে প্রামান্যচিত্রের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর বিভিন্ন কর্ম তুলে ধরার মাধ্যমে অনুষ্টিত আলোচনা সভায় বক্তারা
সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদতবার্ষিকীতে তাঁর স্মৃতির প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা জানান ।শোকাহত চিত্তে আরও শ্রদ্ধা জানান বঙ্গবন্ধুর সহধর্মিণী শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব, তাঁর তিন পুত্র শেখ কামাল, শেখ জামাল, শিশুপুত্র শেখ রাসেলসহ শহীদদের প্রতি, যাঁরা ১৯৭৫ সালের এ দিনে মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতাবিরোধী ষড়যন্ত্রকারীদের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ মদদে ঘাতকচক্রের হাতে শাহাদতবরণ কারীদের।
বক্তাগন বলেন, ১৫ আগস্ট জাতির ইতিহাসে একটি কলঙ্কজনক অধ্যায়। মুক্তিযুদ্ধের পরাজিত শক্তি বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মাধ্যমে বাঙালির স্বাধীনতা ও মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার কেড়ে নিতে চেয়েছিল। তারা শুরু করেছিল বঙ্গবন্ধু মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার ইতিহাস বিকৃতির পালা। ইতিহাসের নারকীয় হত্যাকাণ্ডের বিচারপ্রক্রিয়া বন্ধ করতে ঘাতক চক্র কুখ্যাত ‘ইনডেমনিটি আইন’ পাস করে।
জেলজুলুম নির্যাতন আর অনেক ত্যাগ তিতিক্ষার বিনিময়ে বঙ্গবন্ধু আমাদের জন্য প্রতিষ্ঠা করে গেছেন স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ। যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশের অর্থনীতির পুনর্গঠনের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধু উন্নয়ন ও অগ্রগতির রূপরেখা রেখে গেছেন। রাজনৈতিক স্বাধীনতার পাশাপাশি ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠাই ছিল বঙ্গবন্ধুর আজীবনের লালিত স্বপ্ন। তিনি চেয়েছিলেন বাংলাদেশ যেন সব সময় বিশ্বের বুকে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে পারে। কিন্তু ’৭৫-র ১৫ই আগস্ট স্বাধীনতাবিরোধী ঘাতক চক্র ও বিদেশী ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মাধ্যমে তাঁর সে স্বপ্ন বাস্তবায়ন হতে দেয়নি।মুক্তিযুদ্ধের পরাজিত শক্তি ভেবেছিল বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মাধ্যমে তাঁর নীতি ও আদর্শ মুছে ফেলা যাবে। কিন্তু তাদের সে চক্রান্ত এ দেশের মুক্তিকামী জনগণ সফল হতে দেয়নি তাইতো জীবিত মুজিবের চেয়ে অন্তরালের মুজিব অনেক বেশি শক্তিশালী।
১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে যে অপশক্তি, ষড়যন্ত্রকারী গোষ্ঠী হত্যা করেছিল, সেই একই গোষ্ঠী ও তাদের অনুসারীরা ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট শেখ হাসিনাসহ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতাদের হত্যার চেষ্টা করে।

বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে ধারণ করে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দুর্নীতিমুক্ত দেশ গঠন করতে হবে, অসাম্প্রদায়িক চেতনার বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের বাংলাদেশ গড়তে হবে, এটাই সবার লক্ষ্য হওয়া উচিত । পরাজিত শক্তি যখন নিজেরা দমাতে পারেনি, শত চেষ্টাতেও যারা পরাস্ত হয়েছিলো স্বাধীন বাংলার প্রাণ প্রাচুর্যের কাছে। তখনই তারা প্রগতির পথ রুদ্ধ করতে ইতিহাসের সেই ঘৃণ্য কালো অধ্যায় রচনা করে ১৫ই আগষ্টের কালো রাত্রিতে জাতির পিতাকে সপরিবারে হত্যা করে। আলোচনা সভা থেকে বঙ্গবন্ধুর পলাতক খুনিদের ও তাদের মদতদাতাদের দেশে ফিরিয়ে আনতে সরকারের কূটনৈতিক প্রচেষ্টা জোরদার করে দ্রুত শাস্তি কার্যকর করে জাতিকে কলন্কমুক্ত করার জন্য প্রধানমন্ত্রীর নিকট আহ্বান জানানো হয়।

বক্তাগন বলেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ সভাপতি জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকার বঙ্গবন্ধুর দেখানো পথ ধরেই এগোচ্ছে। বাংলাদেশ যে সমৃদ্ধির দিকে এগিয়ে যাচ্ছে, সারা বিশ্বে তা একটি উন্নয়নের রোল মডেল। শেখ হাসিনার নির্দেশ মতো দেশ বিদেশে হাইব্রিড মুক্ত আওয়ামীলীগ ও এর অঙ্গসংঠন এর কমিটি গঠন করে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়নে সহযোগীতা করতে সকলকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত