মঙ্গলবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ৭ আশ্বিন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

জুড়িতে ভোক্তা অধিকার অধিদপ্তরের তদারকি অভিযানে ৪টি প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা।



জাতীয় ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের সার্বিক নির্দেশনা এবং জেলা প্রশাসক, মৌলভীবাজারের তত্ত্বাবধানে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর, মৌলভীবাজার জেলা কার্যালয় এর সহকারী পরিচালক মোঃ আল-আমিন এর নেতৃত্বে জুড়ী থানার পুলিশ ফোর্সের সহযোগিতায়

২১ সেপ্টেম্বর সোমবার মৌলভীবাজার জেলার জুড়ী উপজেলায় হাইস্কুল রোড, ভবানীগঞ্জ বাজার, নিউ মার্কেট, বাসস্ট্যান্ডসহ বিভিন্ন জায়গায় নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য সামগ্রীর প্রতিষ্ঠান, ফার্মেসী এবং অন্যান্য দোকানে মনিটরিং ও সচেতনতামূলক কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়।
উক্ত তদারকি অভিযানে মূল্য তালিকা না রাখা, মেয়াদ উত্তীর্ণ খাদ্য পণ্য ও ঔষধ বিক্রয় করা, অতিরিক্ত দামে খাদ্য পণ্য বিক্রয় করা, ডায়াগনস্টিক সেন্টারে রোগীর শারীরিক পরীক্ষা করা জন্য অতিরিক্ত মূল্য নেওয়াসহ বিভিন্ন অনিয়মের অপরাধে হাইস্কুল রোডে অবস্থিত সানমুন ফার্মেসীকে ৩ হাজার টাকা, ভবানীগঞ্জ বাজারে অবস্থিত নিউ পপুলার ডিজিটাল ডায়াগনস্টিক সেন্টারকে ৭ হাজার টাকা, নিউ মার্কেটে অবস্থিত দিপ্ত ষ্টোরকে ১ হাজার টাকা, বাসস্ট্যান্ডে অবস্থিত আতিক ষ্টোরকে ২ হাজার টাকা জরিমানা আরোপ ও তা আদায় করা হয়।

এ অভিযানে মোট ৪ টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে বিভিন্ন অনিয়মের দায়ে ভোক্তা অধিকার আইনের বিভিন্ন ধারায় সর্বমোট তের (১৩) হাজার টাকা জরিমানা ও তা আদায় করা হয়। এসময় জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের মৌলভীবাজার জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মোঃ আল-আমীন বলেন, পেঁয়াজ, রসুন, আদা, চাল, তেল, শাক-সবজি, কাচামাল, মশলাসহ নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য সামগ্রী সাধারণ মানুষ ন্যায্য মূল্যে প্রাপ্তি নিশ্চিত করার লক্ষ্যে এবং ভোগ্য পণ্য সামগ্রীর দাম যেন কেউ অনৈতিক ভাবে বাড়াতে না পারে এবং নকল হ্যান্ড সেনিটাইজার ও নিম্ন মানের সংক্রমণরোধী জীবাণুনাশক বিক্রয় না করতে পারে সেই লক্ষ্যে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর কর্তৃক প্রতিনিয়ত বাজার মনিটরিং কার্যক্রম চলমান থাকিবে।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত