সোমবার, ১৬ নভেম্বর ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

মৌলভীবাজার জেলার প্রাক্তন ছাত্রলীগের ইন্টারন্যাশনাল ম্যাসেইঞ্জার গ্রুপ ও ইউকে বিডি টিভির পক্ষ থেকে মাল্টিক্লাস সংগঠন যুবলীগের পূর্নাঙ্গ কমিটি ও সিলেট বিভাগের নেতৃবৃন্দকে অভিনন্দন।



মকিস মনসুর.
আজ ১৪’ নভেম্বর ১৪ টি পদ খালি রেখে কংগ্রেসের প্রায় এক বছর পর ঐতিহ্যবাহী বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের অন্যতম সহযোগী মাল্টিক্লাস সংগঠন ইতিহাস আর সুদীর্ঘ সংগ্রামে লালিত এশিয়ার সর্ব বৃহৎ ও স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম যুব সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের ২০১ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। ঘোষিত কমিটিতে ঠাঁই হয়েছে ২০১ জনের। সংগঠনটি প্রতিষ্ঠার পর সদস্য সংখ্যার আকারে এটি সবচেয়ে বড় কমিটি। এই কমিটিতে জায়গা পেয়েছেন কয়েকজন সংসদ সদস্য, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা, বিভিন্ন জেলা থেকে ওঠে আসা নতুন মুখ, সিসি কমিটির সদস্য ও সাবেক কমিটির বেশ কয়েকজন। কমিটিতে জায়গা পেয়েছেন কয়েকজন সাংবাদিকও।
নতুন কমিটিতে বাদ পড়েছেন যুবলীগের গত কমিটির বিতর্কিত নেতারা। পাশাপাশি বয়স ৫৫ বছরের বেশি হওয়ায় বাদ পড়েছেন ৭০ জনের বেশি।
যুবলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে ২৭ জন প্রেসিডিয়াম সদস্যের মধ্যে ২২ জনের নাম ঘোষণা করা হয়েছে। পাঁচটি পদ ফাঁকা রয়েছে। এই ২২ জনের মধ্যে রয়েছেন— অ্যাডভোকেট মামুনুর রশিদ, মঞ্জুর আলম শাহীন, আবু আহমেদ নাসিম পাভেল, শেখ সোহেল উদ্দিন, ডা. খালেদ শওকত আলী, এফবিসিসিআইয়ের সভাপতি শেখ ফজলে ফাহিম, স্বতন্ত্র আসনের সংসদ সদস্য মজিবুর রহমান চৌধুরী নিক্সন, মো. রফিকুল ইসলাম (সাতক্ষীরা), হাবিবুর রহমান পবন (লক্ষ্মীপুর), সাবেক সংসদ সদস্য মো. নবী নেওয়াজ (ঝিনাইদহ), সংসদ সদস্য আবুল কালাম মো. আহসানুল হক চৌধুরী, মো. এনামুল হক খান (ময়মনসিংহ), ড. সাজ্জাদ হায়দার লিটন (সিরাজগঞ্জ), মো. মোয়াজ্জেম হোসেন (ঢাকা), সুভাষ চন্দ্র হাওলাদার (বরগুনা), সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার সেলিম আলতাফ জর্জ (কুষ্টিয়া), ইঞ্জিনিয়ার মৃনার কান্তি জোয়ার্দার (খুলনা), তাজউদ্দিন আহমেদ (পিরোজপুর), সংসদ সদস্য জুয়েল আরেং (ময়মনসিংহ), মো. জসিম মাতুব্বর (পিরোজপুর), আনোয়ার হোসেন (যশোর) ও এম শাহাদত হোসেন তাসলিম (কুমিল্লা)।

কমিটিতে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পেয়েছেন পাঁচজন। তাঁরা হলেন— বিশ্বাস মতিউর রহমান বাদশা (বরিশাল), সুব্রত পাল (কিশোরগঞ্জ), মো. বদিউল আলম (চট্টগ্রাম), ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নাঈম (গোপালগঞ্জ) ও মো. রফিকুল আলম জোয়ার্দার (রাজশাহী)।
সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্ব পেয়েছেন নয়জন। তাঁরা হলেন— কাজী মো. মাজহারুল ইসলাম (নরসিংদী), ডা. হেলাল উদ্দিন (শরীয়তপুর), ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মো. সাইফুর রহমান সোহাগ (মাদারীপুর), মো. জহির উদ্দিন খসরু, মো. সোহেল পারভেজ (নরসিংদী), আবু মুনির মো. শহিদুল হক রাসেল (চট্টগ্রাম), মশিউর রহমান চপল (মুন্সীগঞ্জ), অ্যাডভোকেট মো. শামীম আল সাইফুল সোহাগ (পটুয়াখালী) ও প্রফেসর ড. মো. রেজাউল কবির (ঢাকা)।
প্রচার সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পেয়েছেন ছাত্রলীগের সাবেক সিনিয়র সহসভাপতি জয়দেব নন্দী (খুলনা)। দপ্তর সম্পাদক হয়েছেন মোস্তাফিজুর রহমান মাসুদ (গোপালগঞ্জ)।
গ্রন্থনা ও প্রকাশনা সম্পাদকের পদ পেয়েছেন জহিরুল ইসলাম মিল্টন (সিরাজগঞ্জ), অর্থ বিষয়ক সম্পাদক মো. শাহাদাত হোসেন (ফরিদপুর), শিক্ষা, প্রশিক্ষণ ও পাঠচক্র বিষয়ক সম্পাদক ব্যারিস্টার আলী আসিফ খান রাজিব (গোপালগঞ্জ), আইন বিষয়ক সম্পাদক ব্যারিস্টার সৈয়দ সাইয়্যেদুল হক সুমন (হবিগঞ্জ), আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক কাজী সরওয়ার হোসেন (নড়াইল), ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক মো. সাদ্দাম হোসেন পাভেল (রংপুর), বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার মো. শামীম খান (বরগুনা), তথ্য ও যোগাযোগ (আইটি) বিষয়ক সম্পাদক মো. শামসুল আলম অনিক (গাজীপুর), সাংস্কৃতিক সম্পাদক বিপ্লব মুস্তাফিজ (ফরিদপুর), স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক ডা. মো. ফরিদ রায়হান (ঢাকা), তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক মীর মো. মহি উদ্দিন (চট্টগ্রাম), জনশক্তি ও কর্মসংস্থান বিষয়ক সম্পাদক শাহীন মালুম (নারায়ণগঞ্জ), ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক নিজাম উদ্দিন চৌধুরী পারভেজ (মুন্সীগঞ্জ), পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক হারিস মিয়া শেখ সাগর (চাঁদপুর), শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক মো. আবদুল হাই (নোয়াখালী), কৃষি ও সমবায় বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মো. হেমায়েত উদ্দিন মোল্লা (গোপালগঞ্জ), মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক মো. আবদুল মুকিত চৌধুরী (হবিগঞ্জ), ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক মাওলানা খলিলুর রহমান সরদার (বরিশাল) ও মহিলা বিষয়ক সম্পাদকের পদ পেয়েছেন অ্যাডভোকেট মুক্তা আক্তার (শরীয়তপুর)।

উপ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আদিত্য নন্দী, উপ-দপ্তর সম্পাদক মো. দেলোয়ার হোসেন শাহজাদা, উপ-গ্রন্থনা ও প্রকাশনা সম্পাদক অ্যাডভোকেট শেখ নবীরুজ্জামান বাবু, উপ-অর্থ সম্পাদক শরীফুল ইসলাম দুর্জয়, উপ-শিক্ষা প্রশিক্ষণ ও পাঠাগার সম্পাদক কাজী খালিদ আল মাহমুদ টুকু, উপ-আইন সম্পাদক অ্যাডভোকেট মো. এনামুল হোসেন সুমন, উপ-আন্তর্জাতিক সম্পাদক সফেদ আশফাক আকন্দ তুহিন, উপ-ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ সম্পাদক মো. আলতাফ হোসেন, উপ-বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সম্পাদক মো. রাশেদুল হাসান সুপ্ত, উপ-তথ্য ও যোগাযোগ (আইটি) সম্পাদক এন আই আহমেদ সৈকত, উপ-সাংস্কৃতিক সম্পাদক ফজলে রাব্বি স্বরণ, উপ-স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা সম্পাদক ডা. মাহফুজুর রহমান উজ্জল, উপ-তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক শেখ মো. মিছির আলী, উপ-জনশক্তি ও কর্মসংস্থান সম্পাদক শামসুল কবির রাহাত, উপ-ক্রীড়া সম্পাদক মো. আব্দুর রহিম, উপ-পরিবেশ সম্পাদক মো. সামসুল আলম পাটোয়ারি, উপ-শিল্প ও বাণিজ্য সম্পাদক মো. ফিরোজ আল-আমিন, উপ-কৃষি ও সমবায় সম্পাদক মোল্লা রওশন জামিল রানা, উপ-মুক্তিযোদ্ধা সম্পাদক মো. গোলাম কিবরিয়া শামীম, উপ-ধর্ম সম্পাদক হরে কৃষ্ণ বৈদ্য, উপ মহিলা সম্পাদক সৈয়াদা সানজিদা শারমীন।
সদস্য পদ রয়েছে ৭৫টি। এরমধ্যে কয়েকটি পদ ফাঁকা রাখা হয়েছে। বাকি পদগুলো ঘোষণা করা হয়েছে।

যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিল জানান, আমাদের সাংগঠনিক নেত্রী আওয়ামী লীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে আমরা কমিটি জমা দিয়েছিলাম। অনুমোদনের পর আজ বিকালে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের ভাই আমাদের কাছে সেই অনুমোদিত কমিটি হস্তান্তর করেছে।
এর আগে ২০১৯ সালের ২৩ নভেম্বর যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক ঘোষণা করা হয়। যুবলীগের সপ্তম কংগ্রেসে সংগঠনটির সভাপতি পদে আসেন শেখ ফজলে শামস পরশ ও সাধারণ সম্পাদক পদে আসেন মাঈনুল হোসেন খান নিখিল। সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক ঘোষণার এক বছর পর পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন দেয়া হলো।
এদিকে দেশে বিদেশে বসবাসকারী মৌলভীবাজার জেলার প্রাক্তন ছাত্রলীগের ইন্টারন্যাশনাল ম্যাসেইঞ্জার গ্রুপ ও ইউকে বিডি টিভির পক্ষ থেকে যুবলীগের পূর্নাঙ্গ কমিটি ও সিলেট বিভাগের নেতৃবৃন্দকে আন্তরিক অভিনন্দন ও মুজিবীয় শুভেচ্ছা জানানো হয়েছে। বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের কেন্দ্রীয় পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী রাষ্ট্র নায়ক ম্যাদার অব ইউমিনিটি শেখ হাসিনার মাধ্যমে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ ও সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিলের নেতৃত্বে একটি সুন্দর ও পরিচ্ছন্ন কমিটি গঠন করায় নবগঠিত কমিটির সকল নেতৃবৃন্দকে দেশে বিদেশে বসবাসকারী মৌলভীবাজার জেলার প্রাক্তন ছাত্রলীগের ইন্টারন্যাশনাল ম্যাসেইঞ্জার গ্রুপ ও ইউকে বিডি টিভির পক্ষ থেকে আন্তরিক অভিনন্দন ও মুজিবীয় শুভেচ্ছা জানানো হয়েছে।।
অভিনন্দন বার্তায় আশা নেতৃবৃন্দ আশা প্রকাশ করেছেন
আজ থেকে ৪৮ বছর আগে ১৯৭২’সালের ১১ ই নভেম্বর
বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের মূলমন্ত্র গণতন্ত্র, শোষনমুক্ত সমাজ অর্থাৎ সামাজিক ন্যায়বিচার, জাতীয়তাবাদ, ধর্ম নিরপেক্ষতা অর্থাৎ সকল ধর্মের মানুষের স্ব স্ব ধর্ম স্বাধীনভাবে পালনের অধিকার তথা জাতীয় চার মুলনীতিকে সামনে রেখে বেকারত্ব দূরীকরণ, দারিদ্র দূরীকরণ, দারিদ্র বিমোচন, শিক্ষা সম্প্রসারন, গণতন্ত্রকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপদান, অসাম্প্রদায়ীক বাংলাদেশ ও আত্মনির্ভরশীল অর্থনীতি গড়ে তোলা এবং যুবসমাজের ন্যায্য অধিকারসমুহ প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্দেশে অসাম্প্রদায়িক, গণতান্ত্রিক ও শোষণমুক্ত বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে যুবসমাজকে সম্পৃক্ত করার লক্ষ্য নিয়েই বঙ্গবন্ধুর ভাগনা যুব সমাজের নয়ন মনি শেখ ফজলুল হক মণির নেতৃত্তে রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে এক যুব কনভেশনের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠিত হয় ইতিহাস আর সুদীর্ঘ সংগ্রামে লালিত এশিয়ার সর্ব বৃহৎ ও স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম যুব সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ নামক এই সংগঠন। দীর্ঘ পথ পরিক্রমায় আজ যুবলীগ একটি মাল্টিক্লাস সংগঠন হিসাবেপরিণত হয়েছে। নেতৃবৃন্দ আরও বলেন মানণীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নিদের্শনা যথাযথভাবে পালন করার মধ্য দিয়ে আজকের মাল্টিক্লাস যুবলীগাররা যাতে কায়েমী স্বার্থান্বেষী মহলের ও ষড়যন্ত্রকারীদের সকল ষড়যন্ত্রকে মোকাবেলা করে বাংলাদেশের উন্নয়নের- অগ্রযাত্রার ধারাবাহিকতা বজায় রেখে একটি সুখী সমৃদ্ধশালী, অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ হিসাবে গড়ে তুলতে ও জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সপ্নের সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলার আলোর মিছিলকে এগিয়ে নিতে বিশ্ব বাঙালীর অহংকার, বিশ্বমানবতার বাতিঘর ,বাংলাদেশের সফল প্রধানমন্ত্রী ম্যাদার অব ইউমিনিটি দেশরত্ন শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে ঐক্যবদ্ধ ভাবে কাজ করে যাবেন ৪৮তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে এই হোক সকল মাল্টিক্লাস যুবলীগারদের আজকের পূর্নাঙ্গ কমিটির
দীপ্ত শপথ.।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত