সোমবার, ১৫ অগাস্ট ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ৩১ শ্রাবণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বড়লেখায় নবজাতক হন্তারক কুমারী মাতাসহ গ্রেফতার ২



বড়লেখা প্রতিনিধি : মৌলভীবাজারের বড়লেখার তারাদরম গ্রামে অবৈধ সন্তান জন্ম দেওয়ার পর নিজ কুমারী মা নবজাতকটিকে দা দিয়ে গলা কেটে হত্যার পর বাড়ির পার্শ্বে গর্ত করে মাটিতে পুঁতে ফেলে। এলাকাবাসী বিষয়টি টের পেয়ে পুলিশকে খবর দিলে থানা পুলিশ নবজাতকের দ্বি-খ-িত লাশ উদ্ধার ও নবজাতকের মা স্বপ্না বেগমকে গ্রেফতার করেছে। ঘটনাটি ঘটেছে গত শুক্রবার রাত ৮টায়। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ আটক করেছে প্রেমিক আব্দুল কুদ্দুছকে। 
থানা পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্র জানায়, বড়লেখা উপজেলার দক্ষিণ শাহবাজপুর ইউনিয়নের তারাদরম গ্রামের খলিলুর রহমানের কুমারী মেয়ে মা স্বপ্না বেগম (২২) প্রেমের ফাঁদে পড়ে এক পর্যায়ে অন্ত:স্বত্তা হয়ে পড়ে। শুক্রবার রাত ৮টায় স্বপ্না বেগম একটি কন্যা সন্তান প্রসব করে। লোক-লজ্জার ভয়ে স্বপ্না বেগম নবজাতক শিশুটিকে সাথে সাথে দা দিয়ে জবাই করে বাড়ির পাশে গর্ত করে মাটিতে পুঁতে রাখে। বিষয়টি জানাজানি হলে গত শনিবার সকালে বড়লেখা থানা পুলিশ ১ দিনের নবজাতক শিশুর দ্বি-খণ্ডিত লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মৌলভীবাজার মর্গে পাঠায়। পুলিশ এ সময় নবজাতকের মা স্বপ্না বেগমকে গ্রেফতার করে। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয় প্রেমিক আব্দুল কুদ্দুছকে।
বড়লেখা থানার অফিসার ইনচার্জ সেলিম নেওয়াজ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, এ ব্যাপারে পুলিশ বাদী হয়ে হত্যা মামলা (নং-২০) করেছে। নবজাতকের কুমারী মা স্বপ্না বেগম ঘটনার লোমহর্ষক কাহিনী পুলিশের কাছে বর্ণনা দিয়েছে। কুমারী মাতাকে গত শনিবার বিকেলে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। অপরদিকে প্রেমিক সন্দেহে আটক আব্দুল কুদ্দুছকে জিজ্ঞাসাবাদের পর গ্রেফতার দেখিয়ে রোববার বিকেলে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।