বুধবার, ১৭ অগাস্ট ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২ ভাদ্র ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

প্রাথমিক বিদ্যালয় সম্যাসার চিত্র-১: বিশ্বনাথে ১৭টি বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক পদ শূণ্য



Education-for-all (1)

মোহাম্মদ আলী শিপন, বিশ্বনাথ : বিশ্বনাথ উপজেলার ১০০টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মধ্যে ১৭টি বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক পদ শুণ্য রয়েছে। এতে উপজেলার প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষা পরিচালনায় ব্যাঘাত ঘটছে। জনসংখ্যার তুলনায় উপজেলায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সংখ্যা অনেক কম। যেগুলো আছে সেগুলোও নানান সমস্যায় জর্জড়িত।
জানাগেছে, উপজেলার প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে বিশ্বনাথে স্থানীয়দের বাদ দিয়ে বহিরাগতরা প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পাচ্ছেন। আর নিয়োগ পাওয়ার কিছু দিন পর তারা আবার নিজ নিজ সুবিধামত এলাকায় চলেও যান। এতে করে উপজেলার প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে সব সময়ই শিক্ষক সংকট লেগে থাকে। প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগের ক্ষেত্রে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান-মেম্বাররা নিজেদের ভোটের জন্য বহিরাগতদের স্থানীয় বাসিন্দা বলে প্রত্যায়নপত্র দেওয়ার কারনেই এই সমস্যায় সৃষ্টি হয়। উপজেলার ১৭টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দীর্ঘদিন থেকে রয়েছে প্রধান শিক্ষকের শূন্য। বিদ্যালয়গুলিতে যেমন রয়েছে অবকাঠামোগত সমস্যা, তেমনি রয়েছে ডেস্ক-বেঞ্চসহ আসবাবপত্রের সমস্যা।
শিক্ষা অফিস সূত্রে জানাযায়, উপজেলায় সরকারি ১০০টি ও বেসরকারি ২৯টি প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে। এরই মধ্যে সরকারি ১৭টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক নেই। ফলে ভারপ্রাপ্ত শিক্ষক দিয়ে চলছে বিদ্যালয়ের সকল কার্যক্রম।
প্রধান শিক্ষক শূণ্য বিদ্যালয়গুলো হল- উপজেলার ধনপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, পুরানগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, দৌলতপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, সাবাজপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, দূর্যাকাপন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, জগতপুর নিয়ামতপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ঘাগুটিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বাউসি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ভলবপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কান্দিগ্রাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ধলিপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, দোহাল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, খাইয়া-খাইড় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, সমসপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কান্দিগ্রাম এস এইচ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, শিংরাওলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, দাউদপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়।
উপজেলার ধনপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষিকা হাসিনা বেগম বলেন, প্রধান শিক্ষক পদ শূন্য থাকলে যে কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কাজে অনেকটা সমস্যা হয়।
উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা চিন্তাহরণ দাস বলেন, পদ উন্নিত সম্যাসায় থাকায় ১২টি বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া সম্ভব হচ্ছেনা। বাকি ৫টি বিদ্যালয়ে কিছু দিনের মধ্যে প্রধান শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া হবে বলে তিনি জানান।