বুধবার, ১০ অগাস্ট ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২৬ শ্রাবণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কমলগঞ্জে কালভার্ট ভেঙ্গে ফেলায় শমশেরনগর শ্রীমঙ্গল সড়ক যোগাযোগ বন্ধ : জনদুর্ভোগ চরমে



মৌলভীবাজার জেলা প্রতিনিধির : মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার শমশেরনগর সুজা মেমোরিয়াল কলেজের সম্মুখে নতুন কালভার্ট স্থাপনে ঠিকাদার পুরনো কালভার্ট ভেঙ্গে দিয়েছেন। গত ২৩ মে বৃহস্পতিবার ভোর থেকে সোমবার সকাল ১১টা পর্যনত্ম শমশেরনগর-কমলগঞ্জ-শ্রীমঙ্গল ব্যস্ততম সড়কে শত শত যানবাহন আটকা পড়ে জনসাধারণকে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। এলাকাবাসীসহ সংশিস্নষ্ট সূত্র জানায়, প্রায় ৭ লক্ষ টাকা ব্যয়ে এই রোডে চারটি কালভর্টের মধ্যে সুজা মেমোরিয়াল কলেজের সম্মুখের কালভার্টও রয়েছে। শমশেরনগর সুজা কলেজের সম্মুখে কালভার্ট মেরামতের কাজের জন্য গত ২২ মে মধ্যরাতে ঠিকাদারের কর্মরত শ্রমিকরা কালভার্টটি ভেঙ্গে দেন। এরপরে কালভার্টের উপরে স্টীলের সেতু লাগানোর কাজ চলে। কিন্তু সঠিকভাবে দু’পাশে মাটি ভরাট করে সেতু স্থাপন করতে না পারায় বৃহস্পতিবার ভোর থেকে দু’পাশে শতশত যানবাহন আটকা পড়ে।
স্থানীয়রা জানান, শমশেরনগর-শ্রীমঙ্গল বাণিজ্যিক এলাকা এবং কমলগঞ্জ উপজেলা সদরের সাথে প্রতিদিন স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থী, ব্যবসায়ী, অফিসগামী বিভিন্ন স্থানের লোকজনের যাতায়াত থাকায় হাজার হাজার যানবাহন চলাচল করছে। তবে মেরামত কাজের জন্য পূর্বে কোন নোটিশ না টানিয়ে কালভার্ট ভেঙ্গে ফেলায় দূর দূরানত্ম থেকে আগত জনসাধারণকে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।
স্থানীয় বাস মালিক সমিতির শমশেরনগরে নিয়োজিত ম্যানেজার জুলাস আহমদ জানান, এই সড়কে তাদের নিয়মিত চলাচলকারী প্রায় ২৫টি বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে। এছাড়া সিএনজিসহ প্রাইভেট গাড়ি আটকা পড়ায় জনদুর্ভোগ দেখা দিয়েছে। বাসচালক তাপস দাস, ময়না মিয়া, হান্নান মিয়া জানান, সারা দিন গাড়ি বন্ধ থাকায় প্রতিটি গাড়িতে তাদের ৩ জন করে লোকের রোজগার নষ্ট হচ্ছে। গাড়ির মালিকেরা একদিনে দেড় থেকে দুই হাজার টাকার আয় থেকে বঞ্চিত হয়েছেন।
এ ব্যাপারে ঠিকাদার হাবিবুর রহমানের সাথে কথা বলতে চাইলে তিনি উত্তেজিত হয়ে বলেন, যা জানার অফিস থেকে জেনে নিন। আমি কোন কথা বলতে পারব না।
এ ব্যাপারে সওজ (সড়ক ও জনপথের) মৌলভীবাজারের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. নূরম্নন্নবী তরফদারের সাথে সোমবার সকালে যোগাযোগ করা হলে জানান, বৃষ্টিপাতের কারণে কাজ সম্পন্ন করতে একটু বিলম্ব হচ্ছে। তবে লোক পাঠিয়েছেন খুব দ্রম্নত কাজ সম্পন্ন হবে।
কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাহিদুল ইসলাম মিঞা জানান, বিষয়টি তিনি গুরম্নত্বের সাথে খতিয়ে দেখছেন।