সোমবার, ২৮ নভেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কমলগঞ্জের বিভিন্ন স্থানে অসামাজিক কার্যকলাপ বিপর্যস্ত যুবসমাজ : কেউ দেখার নেই



কমলগঞ্জ প্রতিনিধি : মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন স্থানে অসমাজিক কার্যকলাপ দেখা দিয়েছে। বিপর্যস্ত হচ্ছে উঠতি বয়সের যুবসমাজ। এব্যাপারে কেউ যেন দেখার নেই। পুলিশও এব্যপারে নিরব ভূমিকা পালন করছে। উপজেলার কয়েকটি এলাকায় মদ, গাজা, ফেনসিডিল, জুয়া ও পতিতা ব্যবসা জমজমাট হয়ে উঠেছে। প্রশাসনের নাকের ডগায় এসব আস্তানা সমূহে অবাধে প্রতিনিয়ত অসামাজিক কার্যক্রম পরিলতি হওয়ায় বিপর্যস্ত হয়ে পড়ছে স্কুল কলেজগামী শিার্থী ও উঠতি যুব সমাজ। অসামাজিক কার্যক্রমে বাঁধ সাধলে নারী নির্যাতনসহ বিভিন্ন মামলা মোকদ্দমায়ও জড়িয়ে দেয়া হচ্ছে। সম্প্রতি উপজেলার একাধিক স্থানে এসব কার্যক্রমের অভিযোগের ভিত্তিতে খোঁজ নিয়ে এ চিত্র পাওয়া গেছে।
জানা যায়, কমলগঞ্জ উপজেলার ভানুগাছ বাজার, শমশেরনগর, মুন্সীবাজার, কালেঙ্গা, রানীবাজার, আদমপুর, রেল স্টেশন, সমূহে পতিতা বৃত্তির পরিমান উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পেয়েছে। এছাড়াও রেল স্টেশন এলাকার পরিত্যক্ত গোদাম, কলোনী ও কয়েকটি মার্কেটের কলোনী সমূহে মদ, গাজা, ফেন্সিডিল এবং স্থানীয় ও ভ্রাম্যমান পতিতাদের নিয়ে এক শ্রেনীর স্বার্থান্মেষী ও সুবিধাভোগী লোকজন এ ব্যবসা জমজমাট করে তুলেছে। শমশেরনগর ও ভানুগাছ বাজারের বেশ কয়েকটি কলোনীতে এ ব্যবসার পাশাপাশি অবৈধ আরও বিভিন্ন কার্যক্রম পরিলতি হচ্ছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন ব্যবসায়ী বলেন, কতিপয় স্বার্থন্বেষী মহল আস্তানা গড়ে স্থানীয় ও বাইরের বিভিন্ন স্থান থেকে সুন্দরী যুবতিদের এনে নির্বিঘেœ এ ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। এদের পাশাপাশি সুব্যবস্থা রয়েছে মদ, গাজা, ফেনসিডিল। কোন কোন স্থানে বসানো হয় জুয়ার আসরও। উপজেলার পতনঊষার ইউনিয়নের টিলাগড় এলাকায় এক সময়কার নামী তাহিদ ডাকাতের পরিবারের লোকজন নিজ বাড়িতে অবাধে মিনি পতিতালয় ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। রাস্তার পাশে একটি দোকান কৌঠা করে খদ্দেরদের সাথে যোগাযোগের একটি মাধ্যম সৃষ্টি করে সম্প্রতি সময়ে তাদের এই পল্লীর বেশ সুনাম সৃষ্টি হয়েছে। উন্নতমানের হাইএইচ, কার, লাইটেস, সিএনজি ও মোটর সাইকেল যোগে দুপুর থেকে রাত ৮/৯টা পর্যন্ত জমজমাট ব্যবসা পরিচালিত হচ্ছে। ভয়ে নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় লোকজন জানান, বাহির থেকে প্রতিনিয়ত চার থেকে পাঁচ জন উঠতি সুন্দরী যুবতি রেখে অবাধে তারা ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। কয়েকদিন পূর্বে এক যুবতি তাদের অত্যাচারে বাড়ির পিছন দিয়ে পালিয়ে যাওয়ার সময় বাড়ির মহিলারা পিছু ধাওয়া করে মেয়েটিকে আবারও ধরে নিয়ে এসে এই কাজে বাধ্য করেছে। এছাড়াও বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে ছিটিয়ে তারা জমজমাট ব্যবসা শুরু করছে। পার্শ্ববর্তী কুলাউড়া উপজেলার পীরেরবাজার এলাকায় একটি বাড়িতে অবস্থান করে এই ব্যবসা চালাতে চাইলে বাঁধ সাধলে এলাকার কুতুব আলী ও বিলাত আলী নামে দুই ব্যক্তির বিরুদ্ধে কমলগঞ্জ থানায় নারী নির্যাতন মামলা দায়ের করেন মেয়ের মা জহুরা বেগম। তারা কতিপয় ধাপুটে ব্যক্তিবর্গের সাথে সুসম্পর্ক রেখেই তাদের পথচলা শুরু করেছেন।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন জুয়াড়ী বলেন, পুলিশকে মাসোহারা দিয়ে একার্যক্রম চালান। পতনঊষার ইউপি জনৈক সদস্য বলেন, ইউনিয়নের টিলাগড় এলাকায় প্রতিদিন পতিতা ব্যবসা পরিচালিত হয়। এখানে আইনের লোক পর্যন্ত যেতে পারে না।
এ ব্যাপারে কমলগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নিহার রঞ্জন নাথ বলেন, এসব কার্যক্রম বিষয়ে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের কাছ থেকে তিনি কোন অভিযোগ পাননি। তাছাড়া থানায় মামলার বিষয়ে তিনি বলেন, এরা পতিতা এদের এখানে অন্যরা গেলে এ ধরনের মামলা হলে করার কিছু নেই। এসব বিষয়ে তিনি খোঁজ নিয়ে দেখছেন বলে জানান।