বৃহস্পতিবার, ১২ অগাস্ট ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ২৮ শ্রাবণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Sex Cams

বাহুবলে ৪ শিশু হত্যা : আসামি শাহেদের ফের ৩ দিনের রিমান্ড



40

হবিগঞ্জ সংবাদদাতা : পূর্ব বিরোধের জের ধরে হবিগঞ্জের বাহুবল উপজেলার সুন্দ্রাটিকি গ্রামের চার শিশুকে অপহরণের পর হত্যার ঘটনায় আসামি শাহেদ আহমেদ ওরফে ছায়েদের (২৫) ফের তিনদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

সোমবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) বিকেল সাড়ে ৩টায় সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কাউছার আলম এ রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোক্তাদির আলম আসামি শাহেদের সাতদিনের রিমান্ডের আবেদন করলে বিজ্ঞ বিচারক শুনানি শেষে তিনদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এ ব্যাপারে মামলার বাদীপক্ষের আইনজীবী ত্রিলোক কান্তি চৌধুরী বিজন জানান, আসামি শাহেদ পাঁচদিনের রিমান্ডে থাকা অবস্থায় একেক সময় একেক ধরনের তথ্য দিয়েছেন। তাই আরও যুক্তিযুক্ত ও তথ্য উদঘাটনের জন্য ফের তার রিমান্ড চাওয়া হয়।

এর আগে ২৫ ফেব্রুয়ারি মামলার তদন্ত কর্মকর্তা জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোক্তাদির আলমের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে শাহেদের পাঁচদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।

এ ঘটনায় এ পর্যন্ত ছয়জন কারাগারে রয়েছেন। এর মধ্যে আব্দুল আলী ওরফে বাগালের ছেলে জুয়েল, রুবেল ও তার সহযোগী হাবিবুর রহমান আরজু আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

১২ ফেব্রুয়ারি (শুক্রবার) সন্ধ্যায় ওই চার শিশুকে অপহরণ করা হয়। পাঁচদিন পর বুধবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) সকালে বাড়ি থেকে প্রায় দুই কিলোমিটার দূরের ইছারবিল খালের পাশে বালু মিশ্রিত মাটিচাপা অবস্থায় ওই তাদের মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

নিহত শিশুরা হলো- বাহুবল উপজেলার সুন্দ্রাটিকি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্র জাকারিয়া শুভ (৮), প্রথম শ্রেণির ছাত্র মনির মিয়া (৭), চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র তাজেল মিয়া (১০) ও সুন্দ্রাটিকি মাদ্রাসার ছাত্র ইসমাইল মিয়া (১০)। এদের মধ্যে প্রথম তিনজন সম্পর্কে আপন চাচাতো ভাই। আর ইসমাইল তাদের প্রতিবেশী।

স্থানীয় সূত্র জানায়, শিশু মনির, শুভ ও তাজেলের বাবার সঙ্গে একটি বড়ই গাছ কাটাকে কেন্দ্র করে একই গ্রামের পঞ্চায়েত আব্দুল আলী ওরফে বাগল মিয়ার বিরোধ ছিল। ওই বিরোধের জের ধরে এই চার শিশুদের অপহরণের পর হত্যা করা হয়।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত