বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৩ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

নিজস্ব উড়োজাহাজেই হজযাত্রী পরিবহন করবে বিমান



10

নিউজ ডেস্ক :: সিন্ডিকেটের হাত থেকে এ যাত্রায় রক্ষা পাচ্ছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স। হজের জন্য এ সিন্ডিকেটের অপ্রয়োজনীয়ভাবে উড়োজাহাজ লিজ নেওয়ার সিদ্ধান্তকে এক কথায় ‘না’ করে দিয়েছে মন্ত্রণালয়।

গতবারের মতো এবারও তাই নিজস্ব উড়োজাহাজেই হজযাত্রী বহন করবে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স। ফলে বিমানের লাভজনক হজযাত্রী পরিবহন খাতটি আবারও লাভ করবে বলে আশাবাদী সংশ্লিষ্টরা।

বেসামরিক বিমান ও পর্যটন মন্ত্রণালয় সূত্র বলেন, প্রয়োজন না থাকলেও হজের জন্য একটি সুপরিসর উড়োজাহাজ লিজে নেওয়ার ষড়যন্ত্র করছিল বিমানের ভেতরের একটি প্রভাবশালী সিন্ডিকেট। এই সিন্ডিকেটের ষড়যন্ত্রে বিমান একটি আর্ন্তজাতিক দরপত্রও আহবান করেছিল। নাইজেরিয়ান কোম্পানি ঈগল সর্বনিন্ম দরদাতা হিসেবে তাতে নির্বাচিতও যায়। কিন্তু নতুন পরিচালনা পর্ষদ এর যৌক্তিকতা খতিয়ে দেখতে একটি কমিটি গঠন করে। এ কমিটি নিজস্ব উড়োজাহাজেই হজযাত্রী পরিবহনের পক্ষে মতামত দিয়েছে। অন্যদিকে মন্ত্রণালয় থেকেও উড়োজাহাজ লিজ না নেওয়ার পক্ষে মতামত দেওয়া হযেছে।

সূত্র আরো জানায়, গত বছরও নিজস্ব উড়োজাহাজেই হজযাত্রী পরিবহনের সিদ্ধান্ত নিয়েছিল বিমান। বিমানের ওই সিদ্ধান্তে ৫৫ হাজার যাত্রী পরিবহন করে দীর্ঘদিন পর লাভের মুখ দেখে রাষ্ট্রীয় পতাকাবাহী প্রতিষ্ঠানটি। এ বছর বিমানের বহরে আরো ২টি নতুন সুপরিসর উড়োজাহাজ যোগ হওয়ায় নিয়মিত রুট চালু রেখেই হজযাত্রী পরিবহনের সক্ষমতা অর্জন করেছে বিমান। তারপরও কমিশন বাণিজ্যের লোভে বিমানের প্রভাবশালী সিন্ডিকেট উড়োজাহাজ লিজ নিতে উঠে-পড়ে লেগেছিল।

বিমানের নতুন পরিচালনা পরিষদ গঠিত কমিটি খোঁজ নিয়ে দেখেছে, হজের জন্য উড়োজাহাজ লিজ নেওয়া হবে আত্মঘাতি সিদ্ধান্ত।

গত ১৭ ফেব্রুয়ারি হজযাত্রী পরিবহনের জন্য একটি সুপরিসর উড়োজাহাজ লিজ নেওয়ার জন্য দরপত্র আহবান করেছিল বিমান। ১৫ মার্চ দরপত্র খোলার পর দেখা যায়, কাবো, ঈগল ও এভিকো নামের তিনটি প্রতিষ্ঠান দরপত্রে অংশ নিয়েছে। ইন্স্যুরেন্সের কাগজে ঘাপলা থাকায় কাবো প্রথমেই বাতিল হয়ে যায়। অন্যদিকে ঈগলের দর ৯ হাজার ২শ’ ডলার এবং এভিকোর দর ৯ হাজার ৯শ’ ৮৫ ডলার।

গত বছর নিজস্ব উড়োজাহাজে হজযাত্রী বহন করে ২শ’ কোটি টাকা আয় করেছিল বিমান।