বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৩ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

খতিবরা কোকিল নন যে শেখানো বুলি আওড়াবে



2016_07_23_13_54_48_sEumXgrPsQwegNmlUuIEiuZaDZjsGT_original

নিউজ ডেস্ক : বাংলাদেশ জমিয়তুল উলামা ঢাকা মহানগরীর সহ-সভাপতি ও রামপুরা বাইতুল মারুফ জামে মসজিদের খতিব শাইখুল হাদিস আল্লামা ইয়াহইয়া মাহমুদ বলেছেন, মসজিদের খতিবরা কোকিল পাখি নন, যে কারো বুলি তারা প্রতি শুক্রবার আওড়াতে থাকবেন। অনেক যাচাই বাছাই করে খতিব সাহেবদের নিয়োগ দেয়া হয়। তাদের উদ্দেশ্যে বিজ্ঞ আলেমদের পরামর্শ সাপেক্ষে কিছু ধারণা দেয়া যেতে পারে।

শনিবার সকালে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটেতে ‘পবিত্র মসজিদে নববী, হলি আর্টিসান, ফ্রান্স-সহ বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে সন্ত্রাসী হামলা ও ঐতিহাসিক শোলাকিয়া ঈদ জামাত-এর গ্র্যান্ড ইমাম আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদকে হত্যাচেষ্টার প্রতিবাদে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

ইসলামি ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক শামিম মোহাম্মদ আফজাল ইসলামের সমালোচনা করে ইয়াহইয়া মাহমুদ বলেন, শামিম মোহম্মদ আফজাল খুতবা নিয়ন্ত্রণ ও খতিব কাউন্সিল গঠনের যে উদ্যোগ নিয়েছেন তা আলেমদের মধ্যে আবেদন তৈরি করতে চরমভাবে ব্যর্থ হবে। ইমাম সম্মেলনে ব্যালে ড্যান্স মঞ্চায়নকারী ইফা ডিজির উপর এ দেশের আলেমদের কোনো আস্থা নেই। ডাক্তার হিসেবে জাকির নায়েকের ইসলাম বিষয়ক বক্তব্য যেমন গ্রহণযোগ্য নয় তেমনি একজন জজ হিসেবে শামিম মোহাম্মদ আফজালের ইসলাম বিষয়ক বক্তব্যও গ্রহণযোগ্য নয়।’

রাজনৈতিক উগ্রপন্থা অবলম্বন করে কখনো ইনসাফ ও শান্তি কায়েম করা যায় না উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘ইসলামের নামে মওদুদী-জামাতসহ বিভিন্ন উগ্রবাদী সংগঠন ইসলাম কায়েমের জন্য যে সন্ত্রাসের পথ বেছে নিয়েছে তা কখনোই ইসলাম সমর্থন করে না।’

তিনি বলেন, ‘মানবকল্যাণে শান্তির ফতোয়া দিয়ে মুজাদ্দিদে মিল্লাত আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ দেশ, জাতি, সরকার এবং বিশেষত উলামায়ে কেরামের পক্ষ থেকে গুরুদায়িত্ব পালন করেছেন।’

আল্লামা মাসঊদের দেয়া ফতোয়া আলোড়ন সৃষ্টি করেছে উল্লেখ তিনি বলেন, ‘আমেরিকার কংগ্রেস, হাউস অব কমন্স ইংল্যান্ড, বাংলাদেশ পার্লামেন্টসহ সংবাদটি প্রিন্ট, ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার সাহায্যে এটি সাড়া জাগাতে সক্ষম হয়েছে। আজ সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে জনগণ যে স্বতঃস্ফূর্তভাবে এগিয়ে এসেছে, এক্ষেত্রে ওই ফতোয়ার ভূমিকা অনস্বীকার্য।’

সংবাদ সম্মেলনে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে স্কুল, কলেজ, মাদরাসা, মসজিদ ও বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে সচেতনতামূলক কর্মসূচি গ্রহণ, জঙ্গিবাদবিরোধী জাতীয় সম্মেলন আহ্বান, আলেম, বুদ্ধিজীবী ও সমমনা সংগঠনগুলোকে নিয়ে সমন্বিত কর্মসূচি গ্রহণ এবং ২৯ জুলাই জঙ্গিবাদ প্রতিরোধ দিবস উদযাপন ও জেলায় জেলায় এক লক্ষ আলেম, মুফতি ও ইমামদের স্বাক্ষর সম্বলিত ফতোয়া ও জঙ্গিবাদবিরোধী স্মরকলিপি প্রদান কর্মসূচি ঘোষণা দেয় বাংলাদেশ জমিয়তুল উলামা।

সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ জমিয়তুল উলামা ঢাকা মহানগরীর সভাপতি মাওলানা দেলোয়ার হোসাইন সাইফীর, মাওলানা ইমাদদুল্লাহ কাসেমী, মুফতি ইবরাহীম শিলাস্থানী, মাওলানা সদরুদ্দীন মাকনুন, মাওলানা আবু সাঈদ নিজামী, মাওলানা আবদুল আলীম ফরিদী, মাওলানা আবুল হোসেন চতুলী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত, কিশোরগঞ্চের শোলাকিয়া ঈদগাহ ময়দানের ইমাম মাওলানা ফরিদ উদ্দিন মাসউদ বাংলাদেশ জমিয়তুল উলামার চেয়ারম্যান।