সোমবার, ১৫ অগাস্ট ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ৩১ শ্রাবণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মৌলভীবাজারে ঐতিহ্যবাহী ষাঁড়ের লড়াই, জিতল “নেওয়াজ পাগলা”



স্টাফ রিপোর্টারঃ

গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী ষাঁড়ের লড়াই মৌলভীবাজারে অনুষ্ঠিত হল। এই ষাড়ের লড়াই দেখতে কৌতুহলী দর্শনার্থীদের উপচে পড়া ভীড় ছিল লক্ষণীয়। দীর্ঘদিন পর অনুষ্ঠিত এই ষাড়ের লড়াইও ছিল বেশ উপভোগ্য।

মঙ্গলবার শহরের বড়কাপন মাঠে মৌলভীবাজার পৌরসভার কাউন্সিলর মাসুদ আহমদের উদ্যোগে এই ষাড়ের লড়াই প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। দুপুর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত চলে এ প্রতিযোগিতা।

প্রতিযোগিতায় মৌলভীবাজার জেলাসহ সিলেট বিভাগের বিভিন্ন এলাকা থেকে ৩০টি (১৫ জোড়া) ষাড় অংশ নেই। লড়ায়ে অংশ নেওয়া প্রতিটি ষাড়ই ছিল বাহারী রংয়ের আর্কষণীয় দেহের।

এসকল ষাড়ের সৌখিন মালিক (দেশী ও প্রবাসী) নানা রং ঢং আর বাধ্যযন্ত্র বাজিয়ে তাদের দলবল নিয়ে প্রতিযোগিতায় অংশ নেন।

সকাল থেকেই প্রতিযোগিতার মাঠে বাধ্যযন্ত্রসহ একের পর এক ষাড়, ষাড়ের মালিক ও ওই দলের সমর্থকরা মাঠে আসতে থাকেন। ষাড়ের লড়াই শুরুর আগেই মাঠ কানায় কানায় পূর্ন হয়ে যায়। জেলার বাহির থেকে আসা সৌখিন ষাঁড়ের মালিকগণ আগের দিন থেকে ষাঁড় নিয়ে আয়োজনকারীর বাড়িতে জড়ো হন। ষাঁড়ের লড়াই দেখতে শিশু কিশোর, মহিলা, ছেলে, বুড়ো নানা বয়সের প্রায় অর্ধ লক্ষাধিক মানুষের সমাগম ঘটে বড়কাপন মাঠে। বর্ণিল রঙের ষাঁড়ের উপস্থিতি প্রতিযোগিতাকে প্রাণবন্ত করে রুপ দেয় উৎসবের। প্রতিযোগিতায় অংশ গ্রহণকারী প্রত্যেকটি ষাঁড়কে বিভিন্ন ও বিচিত্র নাম দেওয়া হয়।

এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল নেওয়াজ পাগলা, দয়াল, কলঙ্কর, ফুল, বিকট, হিরালাল, ফাটা কৃষ্ণ ইত্যাদি। প্রতিযোগীতায় প্রথম পুরষ্কার মৌলভীবাজার সদর উপজেলার বড়কাপনের “নেওয়াজ পাগলা” নামের ষাঁড়ের মালিক মাসুদ আহমদের কাছে তোলে দেয়া হয়। ২য় পুরস্কার পায় “দয়াল” নামীয় ষাঁড় ও ৩য় পুরষ্কার পায় “কলঙ্কর ফুল”। ১ম পুরস্কার ছিল মোটর সাইকেল, ২য় পুরস্কার ২১ ইঞ্চি টিভি, ৩য় পুরস্কার ছিল ২১ ইঞ্চি টিভি।

এছাড়া শান্তনা পুরস্কার দেওয়া হয় ৭টি ১৪ ইঞ্চি টেলিভিশন, ৩টি সিলিং ফ্যান ও ২টি ডিনার সেট।

বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তোলে দেন প্রতিযোগিতার আয়োজক কাউন্সিলার মাসুদ আহমদ, যুক্তরাজ্য প্রবাসী আনছার মিয়া, যুক্তরাজ্য সুয়ানসী শাখার সহ-সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান মনা, কবির মিয়া, ওয়েছ মিয়া,সমছু মিয়া,লায়েক মিয়া, ব্যবসায়ী কামরু মিয়া, বিশিষ্টি মুরব্বী আরশদ মিয়া,ব্যবসায়ী মালিক মিয়া, বিশিষ্ট মুরব্বী মছব্বির মিয়া ও সুন্দর মিয়া প্রমুখ।

আয়োজক মাসুদ আহমদ জানান, এই অনুষ্ঠানটি গেল বছরের ১৬ ডিসেম্বর হওয়ার কথা ছিল জাতীয় নির্বাচন থাকায় তা পিছায়। তিনি সকলের সহযোগিতা পেলে প্রতিবছরই তা আয়োজন করবেন বলে ঘোষণা দেন। তিনি বলেন এবছর ২৬ মার্চ আবারও আয়োজন হবে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী এই ষাড়ের লড়াই।

তথ্য সূত্র: পাতাকুড়ি.নেট।