সোমবার, ১৫ অগাস্ট ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ৩১ শ্রাবণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

জরিমানা বাকিরা দিলেও দেয়নি ‘বিলাস’ (ভিডিওসহ)



নিজস্ব প্রতিবেদক ::

মৌলভীবাজারের এমবি আর বিলাস। দুইটি সুনামধন্য বিপনী। রয়েছে অনেক নাম-যশ। উভয় প্রতিষ্ঠানে অভিযান চালিয়ে মোড়কজাতকরণ বিধিমালা ২০০৭ লঙ্ঘন করে অতিরিক্ত দামে পণ্য সামগ্রী বিক্রয় করাসহ বিভিন্ন অপরাধে এই দুই প্রতিষ্ঠানকে মোট ১লক্ষ টাকা জরিমানা করেছে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর।

বৃহস্পতিবার মৌলভীবাজারের সদর উপজেলার কোর্ট রোড, সেন্ট্রাল রোড, এম সাইফুর রহমান রোডসহ বিভিন্ন স্থানে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের অভিযানে ৩ টি প্রতিষ্ঠানকে ৮৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। বিষয়টি প্রেসরিলিজের মাধ্যমে নিশ্চিত করা হয়েছে।

পুলিশের সহযোগিতা অভিযানের নেতৃত্বে ছিলেন জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর মৌলভীবাজার জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মো: আল-আমিন।

অভিযানকালে কোর্ট রোডে অবস্থিত রাজমহলকে ৩০ হাজার টাকা, সেন্ট্রাল রোডে অবস্থিত বার্টন গ্যালারিকে ৫ হাজার টাকা, এম সাইফুর রহমান রোডে অবস্থিত এম বি ডিপার্টমেন্টাল ষ্টোরকে ৫০ হাজার টাকাসহ মোট ৮৫ হাজার টাকা জরিমানা আরোপ ও তা আদায় করা হয়। অভিযানে এম সাইফুর রহমান রোডে অবস্থিত বিলাস ডিপার্টমেন্টাল স্টোরকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানার আদেশ দিলেও তারা জরিমানার টাকা পরিশোধ করেনি। উল্টো ওই কর্মকর্তাকে অবরুদ্ধ করে রাখা হয়। পরে দুই ঘন্টা পর পুলিশ উদ্ধার করে। ঘটনাকে কেন্দ্র করে শহরের সেন্ট্রাল রোড অবরোধ করে রাখেন স্থানীয় ব্যবসায়ীরা।

প্রেস রিলিজে দাবী করা হয়,“ তারা সরকারি কাজে বাধা সৃষ্টি করেছেন। সহকারী পরিচালককে শারীরিক ভাবে আঘাত করে। আইনের প্রতি অশ্রদ্ধা দেখায়। সহকারী পরিচালককে সাময়িক ভাবে আটকিয়ে রাখেন। বিলাস ডিপার্টমেন্টাল ষ্টোরে মালিক মিথ্যাভাবে সহকারী পরিচালকের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগ করেন। মিথ্যা অভিযোগ, সরকারি কাজে বাধা, শারীরিক ভাবে আঘাত এ সমস্ত কারণে তাদের বিরুদ্ধে মামলা করা হবে।”

এবিষয়ে বিলাসের সত্তাধিকারী সুমন আহমদ ও সুহাদ আহমদ জানান- “কিছু দিন আগে তাদের দোকানে অভিযান দেন ওই সহকারী-পরিচালক। পণ্যের ক্রয় মূল্য ও বিক্রয় মূল্যের তালিকা দেখানোর পরও তিনি কারন ছাড়াই জরিমানা আদায় করেন।

তারা জানান- একটি বিদেশী ব্যান্ডেড কোম্পানীর নকল পণ্য ধরে তারা তার কাছে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ দিলেও তিনি আমলে নেননি। অথচ অভিযোগ ছাড়া তিনি ঢালাও ভাবে অভিযানের নামে ব্যবসায়ীদের হয়রানী করছেন।”