বৃহস্পতিবার, ২ জুলাই ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ১৮ আষাঢ় ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Sex Cams

বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক রফিকুর রহমানের বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবন



ফাইল ছবি।

ডিএমবি ডেস্ক::

কমলগঞ্জ পৌরসভার নছরত গ্রামে ১৯৫২” সালে জন্ম গ্রহন করেন মোঃ রফিকুর রহমান। পিতা মরহুম হাজী তারা মিয়া মাতা মরহুমা জমিলা খাতুন। কমলগঞ্জ মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে ৫ম শ্রেনী পর্যন্ত ও কমলগঞ্জ বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয় থেকে মেট্রিকোলেশন সম্পন্ন করে, সিলেট মদন মোহন কলেজে ভর্তি হয়ে ছাত্রলীগের রাজনীতিতে যোগ দেন।

১৯৬৬ইং সালে নির্বাচিত হন মদন মোহন কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি। এরই ধারাবাহিকতায় ১৯৬৮ সালে সিলেট মহকুমা ছাত্রলীগের সভাপতি। পরবর্তিতে ১৯৬৯ সালের গণআন্দোলনে সিলেট মহকুমা ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের সদস্য ও ১৯৭১ সালে বঙ্গবন্ধুর ডাকে সাড়া দিয়ে নিজের জীবন বাজি রেখে মুক্তিযোদ্ধে ঝাপিয়ে পড়েন তিনি।

স্বাধীনতার পরবর্তিতে জেলার রাজনীতিতে সক্রিয় হয়ে উঠেন, নির্বাচিত হন জেলা কৃষকলীগের সভাপতি, কেন্দ্রীয় কৃষকলীগের সদস্য, মৌলভীবাজার জেলা আওয়ামীলীগের কৃষি বিষয়ক সম্পাদক। ১৯৮৫ সালে আওয়ামীলীগের প্রার্থী হয়ে উপজেলা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে বিশাল ভোটের ব্যাববধানে বিজয়ী হন তিনি হলেন তৃণমূলের প্রাণপ্রিয় কমলগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান। লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের প্রতিষ্টাকালিন সাবেক সভাপতি।কমলগঞ্জ উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সাবেক সাধারন সম্পাদক, মৌলভীবাজার জেলা ক্রীড়া সংস্থার সদস্য। কমলগঞ্জ মডেল উচ্চ বিদ্যালয় গভর্নিং বডির বিভিন্ন মেয়াদে ১৩তম সভাপতি হন।

জনসেবার পাশাপাশি কমলগঞ্জ গণমহাবিদ্যালয়ের প্রতিষ্টাতা অধ্যাপক এবং ৩৭ বছর অধ্যাপনা করেন,শেষপর্যায়ে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ ছিলেন। ১/১১ এর সময় জননেত্রী শেখ হাসিনাকে গ্রেফতারের প্রতিবাদে রাজপথে নেমে, আন্দোলন সংগ্রামে নেতৃত্ব দেওয়ায়, কারা বরন করতে হয় অধ্যাপক রফিকুর রহমানকে।২০০৮ সালে আওয়ামীলীগ সরকার ক্ষমতায় থাকাকালীন ২য় বারেরমত অধ্যাপক রফিকুর রহমান উপজেলা নির্বাচনে প্রার্থী হলে শুরু হয় তাকে দমানোর ষড়যন্ত্র, কিন্তু ষড়যন্ত্রের কাছে পরাজিত হলেও তাকে মানুষের ভালবাসা থেকে আলাদা করা যায়নি।

এর ফলে পরবর্তিতে ২০১১ সালে পুনরায় তিনি বিশাল ভোটের বেবদানে উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। ২০১৬ সালে আওয়ামীলীগের ২০তম জাতীয় কাউন্সিল অনুষ্টিত হলে অধ্যাপক রফিকুর রহমানের বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবন বিবেচনায়, জননেত্রী, দেশরত্ন, আওয়ামীলীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনা তাকে কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সদস্য নির্বাচিত করেন।

চা শ্রমিক সহ ক্ষদ্র নৃগোষ্টি এবং তৃনমূল আওয়ামীলীগের যেহেতু অসম্ভব জনপ্রিয়, সে জন্য বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব অধ্যাপক রফিকুর রহমান মহোদয়কে গত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে কমলগঞ্জ উপজেলা থেকে আওয়ামীলীগের মনোনিত প্রার্থী হয়ে বিপুল ভোটে  এমপি আব্দুস শহীদের ভাইকে পরাজিত করেন ।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত