বুধবার, ১৭ অগাস্ট ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২ ভাদ্র ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ইইউ সেটেলমেন্ট স্কিমের আওতায় বৃটেনে থাকার অধিকার বাতিল করতে শুরু করেছে ইউকে সরকার।




২০২০ সালের জুন মাসে ইইউ সেটেলমেন্ট স্কিমের আওতায় প্রায় ১৪০০ আবেদন খারিজ করা হয়েছে। এ বছরের মে মাসে আবেদন বাতিল করা হয়েছিল সর্বমোট ২০০টি। অর্থাৎ মে থেকে জুন মাসে আবেদন প্রত্যাখ্যানের হার বেড়েছে প্রায় ৭০০ ভাগের মতো।
২০১৯ সালে শুরু হওয়া ইইউ সেটেলমেন্ট স্কিমে এখন পর্যন্ত আবেদন বাতিল হয়েছে ২ হাজার ৩০০টি। গেল মাসে বাতিলের হার সবচেয়ে বেশি।
মে মাসেই সেটেলমেন্ট স্কিমের আবেদন অবৈধ করা হয়েছে ৭ হাজার ১০০টি। আর জুন মাসে ১২ হাজার ৩০০টি। অর্থাৎ একমাসেই আবেদন প্রত্যাখানের হার বেড়েছে ৭৩ ভাগ। যাদের আবেদন অবৈধ করা হচ্ছে, তারা দ্বিতীয়বার আর আপিল করার সুযোগ পাবে না।
ইউরোপিয় ইউনিয়নের নাগরিক ও তাদের পরিবারের সদস্যদের ব্রেক্সিট পরবর্তী ইউকেতে থাকার অধিকার বাতিল করতে শুরু করেছে দেশটির প্রশাসন।
ক্যাম্পেইন গ্রুপ থ্রি মিলিয়নের সহযোগী গবেষক কুবা জাবলোনস্কি বলেন, যেসব কারণে আবেদন প্রত্যাখ্যান হচ্ছে তার কারণ পুরোপুরি ব্যাখ্যা করতে চাচ্ছে না হোম অফিস। এই ব্যপারটি আমাদেরকে বেশ উদ্বিগ্ন করে তুলছে। তাছাড়া যেসব আবেদন রিফিউজড হয়েছে তাদেরকে পুনরায় আপিল করার সুযোগ দেওয়া উচিত বলে তিনি মনে করেন।
তবে এখন পর্যন্ত ৩.৪ মিলিয়ন ইউরোপিয় ইউনিয়নের নাগরিকের সেটেলমেন্টের আবেদন মঞ্জুর করা হয়েছে। বর্ডার ও ইমিগ্রেশন মিনস্টার কেভিন ফস্টার বলেছেন, ইউরোপিয় ইউনিয়নের লোকেরা আমাদের বন্ধু ও প্রতিবেশী। আর সেইজন্যই এতো সংখ্যক লোকের আবেদন মঞ্জুর করা হয়েছে। আর যাদের আবেদন মঞ্জুর করা হয়নি, তারা স্বতন্ত্রভাবে হয়তো স্কিমের শর্ত পুরোপুরি পূর্ণ করতে পারেনি বা অন্য কোনো অপরাধমূলক কাজের সাথে জড়িত।