রবিবার, ২১ মার্চ ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ৭ চৈত্র ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Sex Cams

বাংলাদেশ হাইকমিশন, লন্ডনে যথাযোগ্য মর্যাদা এবং উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে উদযাপিত হলো সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ১০১তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস ২০২১।




১৭ই মার্চ ২০২১ দিনের শুরুতেই মিশনের চ্যান্সারী ভবনে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন মান্যবর হাইকমিশনার সাইদা মুনা তাসনীম। এরপর মিশনের অডিটোরিয়ামে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ঢাকা থেকে প্রেরিত মহামান্য রাষ্ট্রপতি, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, মাননীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রী এবং মাননীয় পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর বাণী পাঠ করে শুনানো হয়। তারপর জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং ‘৭৫ -এর কালরাতে ঘাতকের বুলেটে শাহাদাতবরণকারী তাঁর পরিবারের শহীদ সদস্যবৃন্দ ও ১৯৫২ থেকে ১৯৭১ পর্যন্ত ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে মহান মুক্তিযুদ্ধে দেশমাতৃকার স্বাধীনতার জন্য জীবন উৎসর্গকারী শহীদানের আত্মার মাগফিরাত কামনায় বিশেষ দোয়া পরিচালিত হয়। জাতীয় পতাকা উত্তোলন, বাণী পাঠ ও বিশেষ মোনাজাতের সময় মিশনের সকল কূটনীতিক এবং কর্মকর্তা-কর্মচারীগণ উপস্থিত ছিলেন। বাণীসমুহ পাঠ করেন যথাক্রমে মিশনের ডেপুটি হাইকমিশনার মোঃ জুলকার নাইন, কমার্শিয়াল কাউন্সেলর এস এম জাকারিয়া হক, কাউন্সেলর (পলিটিক্যাল) দেওয়ান মাহমুদুল হক এবং প্রথম সচিব (পাসপোর্ট ও ভিসা) এ এফ এম ফজলে রাব্বী।
মান্যবর হাইকমিশনার সাইদা মুনা তাসনীমের সভাপতিত্বে ও সঞ্চালনায় দিবসের দ্বিতীয়ার্ধে দূতাবাসের বর্ণাঢ্য সাংস্কৃতিক আয়োজনের মধ্যে ছিলো – “বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ” “বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা” এবং “বঙ্গবন্ধু ও ব্রিটেন” – এই তিনটি বিষয়ের উপর মুজিব বর্ষের প্রারম্ভে যুক্তরাজ্য ও আয়ারল্যান্ডের শিশুদের আঁকা নির্বাচিত চিত্রকর্মের প্রদর্শনী, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এবং বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্মের উপর গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা। চিত্রকর্ম প্রদর্শনীর ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিকে ছিলো প্রখ্যাত সারোদিস্ট রাজরূপা চৌধুরীর “বীর রাসা” রাগের সুর লহরী যাতে বঙ্গবন্ধুর সাহসী নেতৃত্ব ও বীরত্বগাঁথা তুলে ধরা হয়। অনুষ্ঠানে ঢাকা থেকে প্রধান অতিথি হিসেবে ভিডিও বার্তা প্রেরণ করেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক মাননীয় প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন্নেছা ইন্দিরা এমপি। বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্মের উপর জ্ঞানগর্ভ আলোচনায় Zoom এ্যাপে ভার্চুয়ালি অংশগ্রহণ করেন আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন বিবিসির সাংবাদিক আশীশ রয়, এশিয়ান অ্যাফেয়ার্স ম্যাগাজিনের এডিটর ডানকান বার্টলেট, বিশিষ্ট কমিউনিটি সংগঠক সৈয়দ সাজিদুর রহমান ফারুক, যুক্তরাজ্যে মহান মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক প্রবীণ রাজনীতিক ও কমিউনিটির শ্রদ্ধেয় ব্যক্তিত্ব সুলতান মাহমুদ শরীফ। অনুষ্ঠানের অন্যতম বিশেষ আকর্ষণ ছিলো মহান ভাষা আন্দোলনের অমর একুশে সংগীতের রচয়িতা, বিশিষ্ট সাংবাদিক-কলামিস্ট-লেখক-কবি আবদুল গাফ্ফার চৌধুরীর আলোচনায় যোগদান। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন এভাবে যথাযোগ্য মর্যাদায় ও সাড়ম্বরে লন্ডনে উদযাপনের জন্য তিনি মান্যবর হাইকমিশনারকে বিশেষ ধন্যবাদ জানান। বিশেষ অতিথি হিসেবে ঢাকা থেকে যোগ দেন সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব, বাংলাদেশ শিশু একাডেমীর চেয়ারম্যান লাকী ইনাম এবং যুক্তরাজ্যে নিযুক্ত ভারতের মান্যবর হাইকমিশনার গায়ত্রী ইসার কুমার।
অনুষ্ঠানে ঢাকা থেকে যোগদান করে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে রচিত গান “জাতির জনক” গেয়ে উপস্থিত সবাইকে মুগ্ধ করেন প্রখ্যাত কণ্ঠশিল্পী ফাহমিদা নবী।
কবি নির্মলেন্দু গুণের কালজয়ী কবিতা “স্বাধীনতা এই শব্দটি কি করে আমাদের হলো” -এর বাংলা ও ইংরেজির মেডলে অনবদ্য এবং হৃদয়গ্রাহী আবৃত্তি করেন প্রখ্যাত নাট্যব্যক্তিত্ব, কণ্ঠশিল্পী ও সংস্কৃতিকর্মী শম্পা রেজা, যাঁর ক্ষুরধার আবৃত্তি সবাইকে মুগ্ধ ও আবেগাপ্লুত করে।
অনুষ্ঠানের শুরুতেই জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন মান্যবর হাই কমিশনার এবং মিশনের ঊর্ধ্বতন কূটনীতিকবৃন্দ। এরপর পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে প্রেরিত বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে নির্মিত বিশেষ প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শিত হয়। তার পরেই ছিলো যুক্তরাজ্য প্রবাসী পাঁচজন বাংলাদেশি-ব্রিটিশ শিশু কর্তৃক বঙ্গবন্ধুর ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ পাঠের আসর, যেখানে বৃটেনের পাঁচটি স্কুল থেকে যোগদানকারী ছাত্র-ছাত্রী মাদিহা ইসলাম, এহসানুল হক, শায়েকা মোহাম্মেদ, ফাতিমা দেওয়ান এবং কিয়ান আহমেদ আলমের উপস্থাপনা সকলকে মুগ্ধ করে। বাংলাদেশ হাই কমিশন প্রযোজিত মুজিববর্ষ থিম সং “মাথার উপর ছায়া আমার জাতির পিতা” গানটি গেয়ে শোনায় ১১ জন ব্রিটিশ বাংলাদেশী শিশু। হীরা কাঞ্চন হীরক ও দেওয়ান মাহমুদের রচিত এই গানটির নির্দেশনা দেন শর্মিলা দাশ ও হিরা কাঞ্চন হীরক। অনুষ্ঠানের সর্বশেষ পরিবেশনা ছিলো প্রখ্যাত কলামিস্ট-লেখক-গীতিকার ও একুশের অমর সংগীতের রচয়িতা আবদুল গাফফার চৌধুরী রচিত এবং কণ্ঠশিল্পী হিমাংশু গোস্বামীর দরদী কণ্ঠে গাওয়া অনবদ্য গান “তিনি আসবেন”। যুক্তরাজ্য প্রবাসী মুক্তিযোদ্ধাদের পক্ষে বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন এবং অনুভূতি ব্যক্ত করেন বীর মুক্তিযোদ্ধা শাহ্ এনাম।
Zoom এ্যাপের মাধ্যমে ভার্চুয়িলী সংযুক্ত থেকে
সাংস্কৃতিক পর্বের গানে অংশগ্রহণকারী ও বঙ্গবন্ধুর আত্মজীবনী পাঠকারী শিশু-কিশোরদের অভিভাবকবৃন্দ, সংগীত শিক্ষকবৃন্দ, বীর মুক্তিযোদ্ধাবৃন্দ, বাংলাদেশ কমিউনিটির সদস্যবৃন্দ, গণমাধ্যমে প্রতিনিধিবৃন্দ, বাংলাদেশ হাইকমিশন পরিবারবর্গের সদস্যবৃন্দ, এবং বাংলাদেশ, যুক্তরাজ্য, আয়ারল্যান্ড, ইউরোপ ও বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে দুই শতাধিক অতিথির অংশগ্রহণে এ মনোজ্ঞ আয়োজন প্রাণবন্ত হয়ে ওঠে।
বাংলাদেশ দূতাবাসের হেড অব চ্যান্সারী ও কাউন্সেলর (পলিটিক্যাল) সদীপ্ত আলমের উপস্থাপনায় এবং ফার্স্ট সেক্রেটারি (পলিটিক্যাল) এ কে এম মনিরুল হকের অনলাইন ব্যবস্হাপনায় অনুষ্ঠানে অতিথি সমন্বয়ে সার্বিক সহযোগিতা করেন মিনিস্টার (প্রেস) আশেকুন নবী চৌধুরী, মিনিস্টার (পলিটিক্যাল) এ এফ এম জাহিদুল ইসলাম, ফার্স্ট সেক্রেটারি (পলিটিক্যাল) মাহফুজা সুলতানা এবং ফার্স্ট সেক্রেটারি (পলিটিক্যাল) মৌমিতা জিনাত।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত