বৃহস্পতিবার, ১৭ জুন ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ৩ আষাঢ় ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Sex Cams

হায়রে বাংলার মানুষের বিবেক।




***************************
তওহীদ ফিতরাহ হোসেন.

সন্ধ্যা হইলেই বাংলার যে মরদ মদের গেলাসে চুমুক না দিলে নিজেরে মরদই ভাবতে পারেনা। বউ রেখে অন্য নারীর সাথে না শুইলে নিজের ধন দৌলতকে বৃথা মনে করে সেই সব পুরুষদের দেখি পরীবানুরে নোংরা নারী নষ্ট নারী বইলা ফেনা তুলে মুখে। শুধুমাত্র নায়িকা হবার কারনে সে যেন অবশ্যই নষ্টা। অথচ তার লাস্যময়ী চেহারার ছবিখান বুকপকেটে না রাখলেও ইউটিউবে সেই জনাব কতবার যে দেখেছেন তার খবর তিনিই জানেন।
অথচ যে পুরুষটির নামে অভিযোগ তারে কেউ বলেনা লম্পট ও অসৎ মানুষ নামের অমানুষ। পরীবানু রাত ১২টায় বোট ক্লাবে গিয়েছে বলে যদি তারে বলেন নষ্টা তবে যে পুরুষ তার সংসার ফেলে বোটের বারে রাত ১২টায় অবস্থান করছিল আমি বলি সে কোন সাধু পুরুষ ?
সাক্ষ্য প্রমানের প্রেক্ষিতে প্রমাণ হবে আসল সত্য। অভিযোগ এসেছে আইন আদালত আছে তারা তদন্ত সাপেক্ষে রায় দেবেন। কিন্তু কোন কিছু না জেনেই পরীবানুকে অনেকেই উল্টো দোষারোপ করছেন।
মুনিয়া থেকে আজকের পরীমনি পুরুষের কাছে শুধুই পণ্য। ধর্ষিত হবে সে কিন্তু চুপ করে থাকতে হবে। বসুন্ধরা আর বোটক্লাব গিলে খাবে টসটসে এমন সুন্দরীদের । এরা গনিমতের মাল। চাহিদা মাত্র গ্রাহককে দিতে বাধ্য থাকিবেন। সো চুপচাপ শুধু দিয়ে যাও। নারী তুমি তেতুল । প্রতিবাদ করা চলবেনা। প্রতিবাদ করলেই নারী তুমি নষ্টা। নষ্টার পক্ষে দিনের আলোতে কেউ নাই।রাতের গ্রাহক সকালে আতর চন্দন মাখা কাশ্মীরি শাল আর জিন্নাহ টুপি পরে রায় দেবে পরী তুমি নষ্টা। তুমি মুখ খুলতে পারবেনা।
আজব আমার দেশের মানুষ আর মানবতা। জারজ বিবেক গ্রাস করেছে সত্য। মদের গ্লাস হাতে জনাব হালাল হারামের সংজ্ঞা শেখায়। সরকারী কর্মকর্তা কর্মচারী পিয়ন থেকে সচিব চোরের দল নামের আগে আলহাজ্জ লিখে। পরের হক মেরে খাওয়া মাফিয়া ডন শালিস করে। দূর্নীতির বরপুত্র টিভির টক শো করে দেশ পরিচালনার মতামত দেয়।
স্বাধীন সভ্য বলে দাবী করি যদি দেশ তবে কেন দেশের নাগরিক একজন কন্যা রাত ১২ টায় ঘরের বাইরে গেলে তার নাম হবে নষ্টা ? রাত হোক আর দিন স্বাধীনতা মানে নারী পুরুষ সকলের সম অধিকার। আইন তাকে সুরক্ষা দেবে অবাধে নির্ভিগ্নে পথ চলার।
তনুকে মনে আছে ? হিজাব পরা মেয়েটি খুন হয়েছিল কুমিল্লা সেনানিবাসের ভেতর। মুনিয়া বেছে নিল আত্মহননের পথ এইতো সেদিন । পরকিয়া প্রেমের বলি বাবুল নামের চৌকস পুলিশ অফিসারের স্ত্রী মিতু সেও ধার্মিক ছিল। আট দশ বছরের শিশুটি তো পর্দা বেপর্দা জানেনা।মধ্যবয়সী শিক্ষক বা মৌলভী কতৃক সে কোন ধর্ষিত হয় ? মাদ্রাসায় বলাৎকারের শিকার বালক শিশুটি ধর্মীয় পোশাক পরে থাকে সারাদিন রাত। তবুও সে রক্ষা পায়না।
সমাজ বিজ্ঞানীগন ভাবুন। বলুন প্রতিকারের পথ। দেশ আজ উন্নয়নের মহাসড়কে। কিন্তু বিশ্বের কাছে একদল
বিবেকহীন বিকৃত মানসিকতার জনগন নিয়ে গর্ব করা যাবেনা। সোনারগা রিসোর্টে সব তেতুল হয়ে যাবে।

তওহীদ ফিতরাহ হোসেন
ইংল্যান্ড
১৬/০৬/২১

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত