রবিবার, ২০ জুন ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ৬ আষাঢ় ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Sex Cams

ত্ব-হা মোহাম্মদ আদনানের নাটকীয় সন্ধান।




মোস্তফা বাবুল.
ইসলামের নামে রসায়ে দুই চারটা কথা বলতে পারলে তাকে এখন কুরআনের পাখি, ইসলামী বক্তা, ইসলামী স্কলা বলে সম্মোধন করা হয়। যদি আপনার বক্তব্য ভালো লাগে তাকে আপনি মাথায় তুলে নাচলে তাতে কার কি আসে যায়। সমস্যা হচ্ছে ওই সব কথিত ইসলামী পাগলগুলো নিজেরা নানা কেলেঙ্কারিতে জড়ায়ে পড়ে তখন তাদের ভক্তরা মুসলমানের ইজ্জত রক্ষায় সরব হয়ে উঠে।

আমরা দেখলাম নারায়নগঞ্জে রিসোর্টে নারী নিয়ে হেফাজত নেতা মামুনুল হক ধরা খাওয়ার পর তার রুহানী সন্তানরা কি ভীষণ রকমের লাফালাফিটাই না করলো। তার পর একে একে যখন মুতা বিয়ের কাহিনী প্রকাশ পেতে লাগলো তখন চুপসে গেছে তার অনুসারীরা। শুধু কি তাই মামুনুল হক কান্ডে হেফাজত নামের সংগঠনটাও তছনছ হয়ে গেছে।

হঠাৎ করে রংপুর থেকে ঢাকায় আসার পথে ড্রাইভার ও দুই জন সঙ্গীসহ কথিত ইসলামী বক্তা আবু ত্ব-হা মোহাম্মদ আদনান গুম হওয়ার বা নিখোঁজ হওয়ার খবর চাউর হয়। শুরু হয়ে যায় “হায় আদনান, হায় আদনান” বলে মাতম। অখ্যাত এক ইউটিউবার ইসলামী বক্তা রাতারাতি খ্যাতি ও জনপ্রিয়তার শীর্ষে উঠে আসেন। মানুষ হিসাবে তার প্রতি যতখানি দরদ দেখানো উচিত ছিলো তার চেয়ে বেশী আওয়াজ তোলা হলো মুসলিম ব্রাদার বলে। আমরা আবারও মসুলমানিয়াতের জাগরণ লক্ষ্য করলাম। একজন মানুষ গুম নয়, একজন মুসলমান গুম হওয়াটাকেই বড় করে দেখানোর চেষ্টা হলো। মিডিয়া কেন চুপ, পরীমনিকে নিয়ে ব্যস্ত কেন মিডিয়া নানা এসব অপ্রাসঙ্গিক বিষয় টেনে গালি বর্ষণের প্রতিযোগিতায় স্যোসাল মিডিয়াকে দূষিত করে তোলা হলো। সরকারের দিকে আঙ্গুল তুলে আদনানকে ফিরিয়ে দেওয়ার দাবী করা হলো। আদনানের স্ত্রী সাবেকুন নাহার সংবাদ সম্মেলনে বললেন, আদনান ফিলিস্তিন-ইজরায়েল নিয়ে বক্তব্য রেখেছেন। তার সন্দেহের তীর ইজরায়েলি গোয়েন্দা সংস্থা মোসেদের দিকে। তাদের এ দেশীয় এজেন্টরা হয়তো তার স্বামীকে তুলে নিয়ে যেতে পারে। তিনি প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে বললেন, “আমার স্বামীকে ফিরিয়ে দেন, তাকে নিয়ে দেশ ছেড়ে চলে যাবো।”‘

তার পর ফেসবুক লাইভে এসে এক ব্যক্তি দাবী করেন, সাবেকুন নাহান তার প্রথম স্ত্রী। তার ঔরসজাত তিন সন্তানের মধ্যে দুই সন্তান তার সঙ্গেই আছে। আদনান তার চতুর্থ স্বামী। সাবেকুন নাহার ইসলামী ছাত্রী সংঘের সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন। জানা যায়, আদনানের প্রথম স্ত্রীর কথাও। আলোচনায় আসে অপহৃত হওয়ার কথা এবং দাবী করা হয় মুক্তিপণও। অতঃপর আদনানের সন্ধান মিললো রংপুরেই।

আদনান গুমের ঘটনায় প্রথমেই আমি সন্দেহ প্রকাশ করে একটা পোস্টে লিখছিলাম, আদনান গুম হয়েছেন নাকি নিজেই কোনো ঘটনার প্রেক্ষিতে আত্মগোপন করেছেন সেটা রহস্যবৃত। ঘটনার পেছনে অন্য কোনো দূরভীসন্ধি তো কিছু একটা আছেই। দৃষ্টান্ত হিসাবে বিএনপি নেতা ইলিয়াস আলীর গুম হওযার এবং পরিণতির কথা উল্লেখ করেছিলাম। এখন দুইয়ে দুইয়ে চার মিললো তো?

শুনেছি আদনানকে পুলিশ থানায় ডেকে নিয়ে গেছে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য। সত্যি যদি তাকে গুম করার চেষ্টা হয়ে থাকে তার সবটাই খুলে বলবেন তিনি। আশা করি আদনান সাহসী ও সত্যবাদীতার পরিচয় দিবেন। তিনি মুখ খুললেই আসল সত্য বের হয়ে আসবে। তার অন্তর্ধান হওয়ার রহস্যটা অবশ্যই জানা দরকার মুসলিম ভাইদের। মনে হচ্ছে আদনান গুমনাটকের শেষাংশটা হবে আরও বেশী ইন্টারেস্টিং।

লেখক – মোস্তফা বাবুল (Mostafa Babul)

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত