বৃহস্পতিবার, ১ ডিসেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে ভ্যাকসিন কার্যক্রম আরও জোরালোভাবে করার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।



। জরুরি ভিত্তিতে দেশের প্রতিটি উপজেলা, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড পর্যায়ে ভ্যাকসিন দেওয়ার নির্দেশনাও দিয়েছেন তিনি। পাশাপাশি বিধিনিষেধ কঠোরভাবে বাস্তবায়নের নির্দেশ দিয়েছেন।

সোমবার (২৬ জুলাই) সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক এসব কথা বলেন।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ভ্যাকসিনেশন কার্যক্রম জোরদার করার জন্য প্রধানমন্ত্রী নির্দেশ দিয়েছেন। এ কার্যক্রম যাতে ওয়ার্ড থেকে শুরু করা হয় সে বিষয়েও দিক নির্দেশনা দিয়েছেন তিনি। বিশেষ করে যেসকল বয়স্ক লোক রয়েছেন, তাদের জন্য ভ্যাকসিন দেওয়ার ব্যবস্থা করা।

যেসব বয়স্ক লোক কেন্দ্রে গিয়ে ভ্যাকসিন নিতে পারছেন না তাদের জন্য বিকল্প ভাবা হচ্ছে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, আমরা হাজার হাজার কর্মীকে প্রশিক্ষণ দিয়েছি, যারা কমিউনিটি ক্লিনিকে কাজ করে, এফডব্লিউসিতে কাজ করে, এমনকি শিক্ষার্থী নার্সদেরও আমরা নিয়ে আসছি এই কার্যক্রমে। আশা করছি সবাইকে ভ্যাকসিন দিতে পারবো, এক কোটি করে মাসে দিলেও ২১ মাস লাগবে। আমরা চাচ্ছি আরও কম সময়ে ভ্যাকসিন দেব।

ভ্যাকসিনের মজুত সম্পর্কে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, তিন কোটি অ্যাস্ট্রোজেনকার ও তিন কোটি সিনোফার্মা থেকে চলে এসেছে। আরও পেয়েছি ৭০ লাখ। এছাড়াও ১ কোটি রাশিয়া থেকে পাচ্ছি।

তিনি জানান, কোভেক্স, মর্ডানা ও ফাইজারসহ সব মিলে প্রায় ৭ কোটি ভ্যাকসিন রয়েছে।

তিনি বলেন, আরও যে চুক্তি রয়েছে তাতে আগামী বছর আরও সাত কোটি পাব। সব মিলিয়ে ভ্যাকসিনের সংখ্যা হবে ২১ কোটি। এ দিয়ে দেশের ৮০ শতাংশ মানুষকে ভ্যাকসিনের আওতায় নিয়ে আসতে পারব আশা করি।

ভ্যাকসিন সংরক্ষণের বিষয়ে বলেন, ফাইজারের ৩০/৪০ লাখ ভ্যাকসিন রাখার সক্ষমতা আছে। ভ্যাকসিন সংরক্ষণের ব্যবস্থাও হচ্ছে। অক্সিজেন সংকটও কেটে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, প্রতি সপ্তাহে ২০০ টন করে অক্সিজেন আসবে। তবে এতো আমাদের দরকার হবে না।
#FansOfSheikhHasina
#COVID19
#Vaccination