শনিবার, ৩ ডিসেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

প্রবাসী ও পর্যটন অধ্যুষিত চায়ের রাজধানী মৌলভীবাজারে ট্যুরিস্ট বাসের উদ্বোধন,, মৌলভীবাজার ডিস্ট্রিক্ট ফাউন্ডেশনের অভিনন্দন,,।




জেসমিন মনসুর,
প্রকৃতিক সৌন্দর্য লীলাভূমি ইতিহাস ও ঐতিহ্যে ভরপুর প্রবাসী ও পর্যটন অধ্যুষিত চায়ের রাজধানী ঐতিহ্যবাহী মৌলভীবাজার জেলায় প্রথমবারের মতো পর্যটকদের সুবিধার্থে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে চালু হয়েছে ট্যুরিস্ট বাস সার্ভিস। ট্যুরিস্ট বাস চালু হওয়ায় দেশ-বিদেশের পর্যটকরা মাত্র কয়েকশ টাকা খরচ করে ঘুরতে পারবেন জেলার এক প্রান্ত থেকে অপর প্রান্ত।
গত ১৪ অক্টোবর দুপুরে মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে দুটি ট্যুরিস্ট বাসের উদ্বোধন করেন সিলেটের বিভাগীয় কমিশনার মো. খলিলুর রহমান। তিনি বলেন, করোনার কারণে পর্যটন শিল্পে ধস নেমেছে। বাংলাদেশের মানুষ সময় পেলেই পরিবার নিয়ে অবসর কাটাতে চায়। সিলেট বিভাগে যত পর্যটক আসেন, তারা কিন্তু মৌলভীবাজার জেলা ঘুরে যান। যারা এটি চালু করতে সহযোগিতা করেছে তাদের কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক মীর নাহিদ আহসান, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মিছবাহউর রহমান, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জাকারিয়া, পৌরসভার মেয়র মো. ফজলুর রহমান, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. কামাল হোসেন, জেলা প্রশাসনের পর্যটন সেলের দায়িত্বে থাকা সহকারী কমিশনার নুসরাত লায়লা নীরা, জেলা শিশু বিষয়ক কর্মকর্তা মো. জসিম উদ্দিন মাসুদসহ জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের কর্মকর্তাগণ, জেলার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও গণমাধ্যম কর্মীরা
সহ আরও অনেকে। ফাতেমা এন্টারপ্রাইজের সহযোগিতায় প্রতিদিন দুটি বাস জেলার বিভিন্ন পর্যটন স্পটে যাওয়া আসা করবে। টিকিট শ্যামলী কাউন্টার শ্রীমঙ্গল, বড়লেখা ও হানিফ কাউন্টার ঢাকা বাসস্ট্যান্ড মৌলভীবাজারে পাওয়া যাবে।
জেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার নুসরাত লায়লা নীরা জানান, ৪০ সিটের দুইটি বাস দিয়ে দুইটি প্যাকেজে এ সার্ভিস চালু করা হচ্ছে। প্রথম প্যাকেজের ট্যুরিস্ট বাস প্রতিদিন সকাল ৯টায় পর্যটক নিয়ে শ্রীমঙ্গল থেকে যাত্রা শুরু করবে বড়লেখার দিকে। আর দ্বিতীয় প্যাকেজের বাস একই সময়ে শ্রীমঙ্গলের উদ্দেশ্যে বড়লেখা থেকে যাত্রা শুরু করবে।
মৌলভীবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক তানিয়া সুলতানা বলেন, আপাতত শুক্র ও শনিবার দুদিন বাসটি চলাচল করবে। চাহিদার আলোকে পরে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। এদিকে মৌলভীবাজার ডিস্ট্রিক্ট ডেভোলাপমেন্ট এন্ড ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশন ওয়ার্ল্ড ওয়াইডের প্রতিষ্ঠাতা প্রজেক্ট চেয়ারম্যান মৌলভীবাজার জেলায় সাবেক ছাত্রনেতা মোহাম্মদ মকিস মনসুর এক বিবৃতিতে প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি মৌলভীবাজার জেলায় এই মহতী উদ্যোগ গ্রহন করার জন্য জেলা প্রশাসক মীর নাহিদ আহসান,সহ এর সাথে জড়িত সংশ্লিষ্ট সবাইকে আন্তরিক অভিনন্দন জানিয়ে এই সার্ভিসের মাধ্যমে মৌলভীবাজার জেলায় দেশ-বিদেশের পর্যটনদেরকে বিশেষ করে প্রবাসীদের নব প্রজন্মের সন্তানদেরকে প্রাকৃতিক দৃশ্য উপভোগ করতে মৌলভীবাজারে উৎসাহিত করবে বলে অভিমত ব্যক্ত করেন। এ ছাড়াও মৌলভীবাজার ডিস্ট্রিক্ট ডেভোলাপমেন্ট এন্ড ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশন ওয়ার্ল্ড ওয়াইডের চেয়ারম্যান সৈয়দ নওশের আলী খোকন, জেনারেল সেক্রেটারি এম মহিবুর রহমান মহিব, ও ট্রেজারার মোহাম্মদ ফয়ছল মনসুর সহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ ও মৌলভীবাজার জেলায় প্রথমবারের মতো পর্যটকদের সুবিধার্থে এই ট্যুরিস্ট বাস সার্ভিস
চালু করার জন্য জেলা প্রশাসক মীর নাহিদ আহসান,সহ এর সাথে জড়িত সংশ্লিষ্ট সবাইকে আন্তরিক অভিনন্দন জানিয়েছেন।
জানা যায়, ট্যুরিস্ট বাস চলাচলে দু’টি প্যাকেজ থাকছে। প্রথম প্যাকেজের ট্যুরিস্ট বাস সকাল ৯টায় পর্যটক নিয়ে শ্রীমঙ্গল থেকে যাত্রা শুরু করবে বড়লেখার দিকে। ওই প্যাকেজের পর্যটকরা চা বাগান, গগণটিলা, মাধবকুণ্ড জলপ্রপাত ও হাকালুকি হাওরসহ অন্যান্য দর্শনীয় স্থানের সৌন্দর্য উপভোগ করতে পারবেন। ওই প্যাকেজে জনপ্রতি ভাড়া থাকছে ৩৫০ টাকা দুপুরের খাবার ছাড়া। আর দুপুরের খাবারসহ জনপ্রতি ৪০০ টাকা। আর দ্বিতীয় প্যাকেজের বাস বড়লেখা থেকে সকাল ৯ টায় যাত্রা শুরু করবে শ্রীমঙ্গলের উদ্দেশে। ওই প্যাকেজের পর্যটকরা উপভোগ করবেন লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান, মাধবপুর লেক, সীতেশ বাবুর চিড়িয়াখানা, বাইক্কা বিলসহ দর্শনীয় স্থান। ভাড়া থাকছে জনপ্রতি ৩৫০ টাকা দুপুরের খাবার ছাড়া। আর দুপুরের খাবারসহ জনপ্রতি থাকছে ৪৫০ টাকা। প্রথমত: তিনটি কাউন্টার থেকে টিকেট সংগ্রহ করতে পারবেন যাত্রীরা। কাউন্টারগুলো হলো- শ্যামলী বাস কাউন্টার হবিগঞ্জ রোড শ্রীমঙ্গল, হানিফ বাস কাউন্টার ঢাকা বাসস্ট্যান্ড মৌলভীবাজার আর শ্যামলী বাস কাউন্টার বড়লেখা। এছাড়াও দু’টি মোবাইল ফোন নম্বরে সার্বক্ষণিক টিকেট সংগ্রহ করতে পারবেন। টিকেট বুকিং ও টাকা বিকাশে পেমেন্ট করার সুযোগ রয়েছে। ওই মুঠোফোন দু’টি ০১৭৭৮-২৩৩০৮৫, ০১৭৭৮-২৩৭৩৯২। যাত্রীরা অগ্রীম টিকেট সংগ্রহ করতে পারবেন।
তবে বাস ছাড়ার সময় কিংবা বাসে উঠার পর টিকেট সংগ্রহ করা যাবে না। যে সকল স্থানে বাসগুলো স্টপেজ দেবে বড়লেখা শ্যামলী বাস কাউন্টারের সামনে, জুড়ী চৌমহনা, কুলাউড়া পৌরসভার সামনে, রাজনগর কলেজ পয়েন্ট, মৌলভীবাজার হানিফ বাস কাউন্টার ও শ্রীমঙ্গল শ্যামলী বাস কাউন্টারের সামনে। ওই সকল স্থানে বড় ছাতা ও ব্যানার টাঙিয়ে স্থান চিহ্নিত করা হয়েছে। ওই বাস দু’টিতে ভ্রমণ করলে কোনো পর্যটন স্পটে প্রবেশ ফি লাগবে না পর্যটকদের। আর সহযোগিতায় সঙ্গে থাকবেন ট্যুর গাইড।