শুক্রবার, ২২ এপ্রিল ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ বৈশাখ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
Sex Cams

মৌলভীবাজারের কৃতি সন্তান বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ ও সমাজসেবক আব্দুল ওয়াদুদ এর ১৩ ৩ম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে ইউকে বিডি টিভিতে আন্তর্জাতিক ভার্চুয়ালী স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত,,,,,,।



,,,বদরুল মনসুর,
৬০ এর দশকের মৌলভীবাজার মহকুমা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক, ও ৭০ এর দশকের মৌলভীবাজার মহকুমা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ,ও মৌলভীবাজার জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ,
এবং মৌলভীবাজার দি চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজ এর সাবেক প্রেসিডেন্ট মরহুম আলহাজ্ব আব্দুল ওয়াদুদ সাহেবের ১৩ ৩ম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে অতি সম্প্রতি সোমবার লন্ডন সময় বিকাল ৫ টায় ইউকে বিডি টিভিতে স্মৃতিচারণ মুলক অনুষ্টান স্মৃতির মনিকোটায় আলহাজ্ব আব্দুল ওয়াদুদ,শীর্ষক এক আন্তজার্তিক ভার্চুয়ালী স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
ইউকে বিডি টিভির চেয়ারম্যান. মৌলভীবাজার জেলার সাবেক ছাত্রনেতা মোহাম্মদ মকিস মনসুর এর সভাপতিত্বে‌ এবং ইউকে বিডি টিভির ম্যানেজিং ডিরেক্টর ইঞ্জিনিয়ার খায়রুল আলম লিংকন এর যৌথ উপস্থাপনায় অনুষ্ঠিত স্মরণ সভার শুরুতেই মরহুমের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে দোয়া পরিচালনা করেন বৃটেনের কার্ডিফ জালালিয়া মসজিদের ইমাম ও খতিব বিশিষ্ট মাওলানা মুহাম্মদ আব্দুল মোকতাদির,
স্মরণ সভায় অতিথি হিসেবে বাংলাদেশ আমেরিকা কানাডা সুইডেন সহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে মৌলভীবাজার জেলার বিশিষ্টজনদের মধ্যে স্মৃতিচারণ মূলক বক্তব্য রাখেন ৬০ এর দশকের মৌলভীবাজার মহকুমা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি বিশিষ্ট আয়কর আইনজীবী মাহমুদুর রহমান মাহমুদ, মৌলভীবাজার মহকুমা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি বিশিষ্ট লেখক সাংবাদিক মুক্তিযোদ্ধা এডভোকেট মুজিবুর রহমান মুজিব, মৌলভীবাজার মহকুমা যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ সৈয়দ সিদ্দেকূল হাসান, মৌলভীবাজার মহকুমা ছাত্রলীগের সাবেক সম্পাদক ও যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদুর রহমান সাজ্জাদ, মৌলভীবাজার মহকুমা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক বিশিষ্ট সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব সুজাউল করিম , যুক্তরাজ্য আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি সাবেক কাউন্সিলার এম‌ এ রহিম সিআইপি, যুক্তরাজ্য আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাবেক ছাত্রনেতা আব্দুল আহাদ চৌধুরী, যুক্তরাষ্ট্র মৌলভীবাজার ডিস্টিক এসোসিয়েশনের সভাপতি সাবেক ছাত্রনেতা তফজ্জল হোসেন, মৌলভীবাজার জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি কাউন্সিলার মুজিবুর রহমান জসিম, মৌলভীবাজার জেলা যুবলীগের সভাপতি নাহিদ আহমেদ, মরহুমের ভাতিজা মোহাম্মদ খয়রুজ্জামান শ্যামল, হল হাম্বার আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক রাধা কান্ত ধর, নিউপোর্ট যুবলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সাবেক ছাত্রনেতা শাহ শাফি কাদির, একাটুনা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম সিরাজ, মৌলভীবাজার জেলা তরুণলীগের সাবেক সভাপতি হাজী আব্দুল বাছিত, মৌলভীবাজার জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি মোহাম্মদ ফয়ছল মনসুর,সহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।
একজন সৎ রাজনীতিবিদ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু আদর্শিক কর্মী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আস্থাভাজন নেতা হিসেবে তার খ্যাতি ছিলো। এখানে উল্লেখ্য যে মৌলভীবাজার জেলা‌ সদরের ঐতিহ্যবাহী একাটুনা ইউনিয়নের উত্তর মুলাইম, সালামতপুর গ্রামের সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে বাবা মরহুম আজাদুর রহমান এর ঘরে ১৯৪৮ ইং সালের ১লা জানুয়ারি জন্মগ্রহণ করেন। ৫ ভাইয়ের মধ্যে তিনি ছিলেন চতুর্থ। স্কুলের ছাত্র থাকা অবস্থায় জড়িয়ে পড়েন আওয়ামী ছাত্রলীগের রাজনীতিতে।
মৌলভীবাজার আওয়ামীলীগ প্রতিষ্ঠার আগেই ছাত্রলীগ প্রতিষ্ঠিত হয়। জনাব ওয়াদুদ ১৮ বছর বয়সেই আয়ুব বিরোধী আন্দোলনে বিশেষ ভূমিকা রাখেন। মৌলভীবাজার আওয়ামীলীগ প্রতিষ্ঠার সময় মহকুমা ছাত্রলীগের ভূমিকা ছিল উলে­খযোগ্য। তখনকার সময়ে ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দের মধ্যে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন তখনকার সময়ের ছাত্রলীগের অন্যতম নেতা জনাব আব্দুল ওয়াদুদ। স্বাধীনতা যুদ্ধের শুরুতেই আব্দুল ওয়াদুদ ভারতে চলে যান যুদ্ধের ট্রেনিং এর জন্য। তিনি কৈলাশহর ভদ্র পল্লি ক্যাম্পের পলিটিক্যাল মটিভেটর ছিলেন। ভদ্র পল্লি ক্যাম্প সহ ভারতে তখনকার ক্যাম্পগুলি যারা পরিদর্শন করতেন তাদের মধ্যে অন্যতম সিনিয়র হিসাবে পরিদর্শন করতেন জনাব তাজ উদ্দিন সাহেব (পরবর্তীতে প্রধানমন্ত্রী)।
জননেত্রী শেখ হাসিনা প্রথম প্রধানমন্ত্রী হয়ে কানাডা সফরে গিয়ে কানাডা আওয়ামীলীগের সম্মেলনে বক্তৃতায় বলেছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ অনেক আগেই ক্ষমতায় আসতো (৬ জেলার ৬ জন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদকের নাম উলে­খ করে বলেছিলেন) এই ৬ জনের মতো ৬৪ জেলায় যদি আমার ৬৪ জন সাধারণ সম্পাদক থাকতো তাহলে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ অনেক আগেই ক্ষমতায় আসতো। সেই ৬টি নামের মধ্যে ১টি নাম ছিল মৌলভীবাজার জেলা আওয়ামীলীগের তৎকালীন সাধারণ সম্পাদক জনাব আব্দুল ওয়াদুদ সাহেবের। জননেত্রী শেখ হাসিনা প্রথম প্রধানমন্ত্রী থাকাকালীন সময় একবার গণভবনে কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের বিশেষ বর্ধিত সভায় সভানেত্রী বিভিন্ন জেলার সভাপতি/সম্পাদকদের বিভিন্ন কারণে তুচ্ছতাচ্ছিল্য করে উপদেশমূলক ভৎসনা করছিলেন। এ অবস্থায় মৌলভীবাজার জেলার সাধারণ সম্পাদক আব্দুল ওয়াদুদের বক্তৃতার সময় হলে তিনি দাঁড়িয়ে প্রথমেই সালাম দিয়ে বক্তৃতার শুরুতে বললেন মাননীয় সভানেত্রী আমরা বঙ্গবন্ধুর কর্মী আপনি আমাদের সভানেত্রী। এই বলে বক্তৃতা শুরু করলে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা ১৫/২০ সেকেন্ড নিরব থেকে জনাব ওয়াদুদ সাহেবের বক্তৃতা মনোযোগ সহকারে শ্রবণ করেন এবং কোন কথাই বলেন নাই। এটাও ছিল জনাব আব্দুল ওয়াদুদ সাহেবের রাজনৈতিক বুদ্ধিমত্তার পরিচয়। আব্দুল ওয়াদুদ সাহেবের সর্বাত্মক সহযোগিতায় ছাত্রলীগের অনেকেই নেতা নির্বাচিত হয়েছিলেন, তারা আজ দেশে বিদেশে প্রতিষ্ঠিত। প্রয়াত আব্দুল ওয়াদুদ ছিলেন সততার এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত। উনার সংস্পর্শে যারাই এসেছিলেন তাদের কমবেশী সবাই রাজনীতিতে প্রতিষ্ঠিত বা নেতা হওয়ার সুযোগ ঘটেছিল এবং জীবনে সততা ও আদর্শ নিয়ে কিভাবে চলা যায়, কিভাবে সৎ জীবন যাপন করা যায় এবং সততা থাকলে কিভাবে মানুষের ভালো বাসা লাভ করা যায় তার দীক্ষা জনাব আব্দুল ওয়াদুদ সাহেবের নিকট থেকে পেয়েছিলেন। আব্দুল ওয়াদুদ সাহেবের সততার কারণে আজও তিনি সমাজের সর্বস্তরের মানুষের কাছে এবং তৃণমূল আওয়ামীলীগের কাছে সমাদৃত। প্রয়াত আবদুল ওয়াদুদ মৌলভীবাজার মহকুমা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ও সভাপতি ছাড়াও তিনি সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি ও কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন বলে জানা গেছে।।

নিউজ সম্পর্কে আপনার বস্তুনিস্ঠ মতামত প্রদান করুন

টি মতামত