শনিবার, ৩ ডিসেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

হযরত শাহজালাল (র.)-কে নিয়ে কটুক্তিকারীদের অন্তরে গৌড়গোবিন্দপ্রীতি রয়েছে —-মাওলানা হুছামুদ্দীন চৌধুরী ফুলতলী।




—-মাওলানা হুছামুদ্দীন চৌধুরী ফুলতলী

বাংলাদেশ আনজুমানে আল ইসলাহর মুহতারাম সভাপতি মাওলানা হুছামুদ্দীন চৌধুরী ফুলতলী বলেন, বর্তমান সময়ে ইসলাম চরম ক্রান্তিকাল অতিক্রম করছে। বিভিন্ন ধরনের ফিতনা ও বিভ্রান্তির বেড়াজালে ইসলাম নিমজ্জিত। বর্তমানে সবচেয়ে বড় ফিতনা ও বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে তথাকথিত আহলে হাদীস নামক লা-মাযহাবীরা। সম্প্রতি তারা হযরত শাহজালাল (র.)-এর মাযারকে শিরকের কেন্দ্র বলেছে; যেটি চরম ধৃষ্টতাপূর্ণ একটি মিথ্যাচার। হযরত শাহজালাল (র.)-এর মাযার শিরকের মারকায নয় বরং শিরককে বিদূরিত করার মারকায। তাদের সাম্প্রতিক কিছু কথাবার্তা ও কর্মকাণ্ডে এটাই প্রমাণিত হয় যে, তাদের অন্তরে আউলিয়ায়ে কিরামের প্রীতি নয় বরং গৌড়গোবিন্দপ্রীতি রয়েছে। হারাম কোন কাজ, বিদ্যমান নানা ফিতনা, অপসংস্কৃতি ও সমাজের অসংগতি নিয়ে তারা নিশ্চুপ হলেও তাদের একমাত্র লক্ষ্য হলো ইসলামকে তাদের নিজস্ব মতবাদে রূপান্তরিত করা এবং মতপার্থক্য তৈরি করে ইসলামকে ধ্বংস করা। এদের মোকাবেলায় তালামীযে ইসলামিয়াকে আপোষহীন ভূমিকায় অবতীর্ণ হতে হবে।

তিনি আরও বলেন, প্রবাহমান ফিতনা-বিভ্রান্তি থেকে শুধু ছাত্রসমাজকে নয় বরং জাতিকে রক্ষার দায়িত্ব তালামীযে ইসলামিয়ার কর্মীদের গ্রহণ করতে হবে। এজন্য শুধু প্রতিষ্ঠানভিত্তিক কর্মকাণ্ডের গণ্ডিতে আবদ্ধ হয়ে নয়, বরং শুদ্ধ আকিদার দাওয়াত নিয়ে মাঠে-ময়দানে ছড়িয়ে পড়তে হবে। সকল ভয়কে উপেক্ষা করে সত্যের পক্ষে কণ্ঠকে উঁচু করতে হবে। সমাজস্থ অন্যায়-অবিচার, যুলমের অন্ধকারে তালামীয কর্মীদের একেকটি আলোকবর্তিকা হতে হবে। এজন্য তালামীযে ইসলামিয়ার কর্মীদেরকে উসওয়ায়ে হাসানাসম্পন্ন আদর্শবান মানুষ হতে হবে। কারণ রাসূল (সা.)-এর উসওয়াকে আঁকড়ে না ধরলে কোন প্রচেষ্টাই কার্যকর হবে না। পাশাপাশি দুনিয়ার মানুষের কাছে ইজ্জত কামনা করা থেকে বিরত থেকে আল্লাহ ও তাঁর রাসূলের সন্তুষ্টির লক্ষ্য কাজ করতে হবে। মহান আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জিত হলেই সেটা হবে প্রকৃত কামিয়াবি ও সফলতা।

তিনি ১৪ ফেব্রুয়ারি, সোমবার, দুপুরে হযরত শাহজালাল দারুচ্ছুন্নাহ ইয়াকুবিয়া কামিল মাদরাসার কনফারেন্স হলে বাংলাদেশ আনজুমানে তালামীযে ইসলামিয়া সিলেট মহানগর আয়োজিত ‘কর্মী প্রশিক্ষণ কর্মশালা’য় প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।