শনিবার, ৩ ডিসেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় বীর মুক্তিযোদ্ধা সুজাউল করিম এর দাফন সম্পন্ন; ইউনিটি অব মৌলভীবাজার সহ বিভিন্ন মহলের।




বদরুল মনসুর,
মৌলভীবাজার জেলার কৃতি সন্তান ৭১ এর বীর মুক্তিযোদ্ধা
স্বাধীনতা পূর্ব মৌলভীবাজার মহকুমা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক, ও স্বাধীনতা উত্তর মৌলভীবাজার মহকুমা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি, মৌলভীবাজার জেলা সদরে বড়কাপন গ্রামের জন্মগ্রহণকারী , সুইডেন প্রবাসী
বাংলা মায়ের অতন্ত্র প্রহরী, অত্যান্ত সৎ রাজনীতিবিদ কমিউনিটি লিডার বিশিষ্ট সঙ্গীত শিল্পী ও বিশিষ্ট সমাজসেবক ৭১ এর বীর মুক্তিযোদ্ধা একে সুজাউল করিম এর সুইডেনের রাজধানী স্টকহোল্মে গত ৭ ই এপ্রিল রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় নামাজে জানাজা শেষে দাফন সম্পন্ন হয়েছে।
সুইডেনের স্টকহোল্ম বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় মসজিদে অনুষ্ঠিত জানাজায় সুইডেনের মান‍্যবর হাইকমিশনার সহ বিভিন্ন সংগঠনের রাজনৈতিক ও কমিউনিটির নেতূবূন্দ এবং মুক্তিযোদ্ধারা সহ বিপুল সংখ্যক জনসাধারণ উপস্থিত ছিলেন।
মৌলভীবাজার জেলার কৃতি সন্তান ৭১ এর বীর মুক্তিযোদ্ধা বিশিষ্ট সমাজসেবক ও কৃতি ফুটবলার একে সুজাউল করিম এর মৃত্যুতে ইউনিটি অব মৌলভীবাজার এর অন্যতম উপদেষ্টা ৭১ এর বীর মুক্তিযোদ্ধা এম এ মান্নান, ইউনিটি অব মৌলভীবাজার এর অন্যতম উপদেষ্টা ৭১ এর বীর মুক্তিযোদ্ধা এডভোকেট হারুনুর রশিদ, ইউনিটি অব মৌলভীবাজার এর অন্যতম উপদেষ্টা ৭১ এর বীর মুক্তিযোদ্ধা ইফতেখার উদ্দিন, ইউনিটি অব মৌলভীবাজার এর অন্যতম উপদেষ্টা বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ আব্দুল আহাদ চৌধুরী, ও ইউনিটি অব মৌলভীবাজার এর আহব্বায়ক,মোহাম্মদ মকিস মনসুর সহ সংগঠনের স্রদ্ধেয় উপদেষ্টাবৃন্দ ও আহব্বায়ক কমিটির সকল সদস্যবৃন্দ এবং বাংলাদেশ টিমের সকল সদস্যবৃন্দের পক্ষ থেকে একযুক্ত শোকবার্তায় গভীর শোক ও শোকাবহ পরিবারবর্গ এর প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন সহ মরহুমার রুহের মাগফেরাত কামনা করেছেন।
শোকবার্তায় নেতৃবৃন্দ বলেন প্রয়াত সুজাউল করিম ছিলেন আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধের প্রথম সারির একজন সংগঠক। তিনি ছিলেন হানাদার পাকিস্তানী আমলে রাজপথে আন্দোলনের অগ্রসৈনিক, মহান মুক্তিযুদ্ধে সম্মুখ সারির এক অকুতভয় বীর মুক্তিযোদ্ধা।
৭১এর মুক্তি সংগ্রামে মৌলভীবাজার জেলায় যাঁদের সাহসী ভূমিকায় মুক্তিযোদ্ধারা সুসংগঠিত হয়েছিলেন তাঁদের মধ্যে অন্যতম ছিলেন এ কে সুজাউল করিম। বীর এই মুক্তিযোদ্ধা, অত্যান্ত সৎ রাজনীতিবিদ ছিলেন।
নেতৃবৃন্দ আর ও বলেন মৌলভীবাজারের গড়ে উঠা সাংকৃতিক অঙ্গনে সঙ্গীত শিল্পী সুজাউল করিমের অবদান অপরিসীম। সিলেট বেতারের একজন শিল্পী হিসেবে সুজাউল করিম প্রচুর সুখ্যাতি অর্জন করেন। দেশের যে সকল সূর্য সন্তানেরা তাদের জীবন বাজী রেখে একটি স্বাধীন রাষ্ট্রের জন্ম দিয়েছেন প্রয়াত সুজাউল করিম ছিলেন তাঁদেরই একজন।
স্বাধীনতার স্বপ্নচারী প্রয়াত সুজাউল করিম স্বপ্ন দেখতেন সমাজ পরিবর্তনের, দেখতেন মেহনতী মানুষের মুক্তির স্বপ্ন। পঁচে যাওয়া এ দুর্নীতিগ্রস্ত সমাজ তার গায়ে কলংক কালিমার উল্কি পড়িয়ে দেয়ার আগেই তিনি নিজ থেকে দেশোত্যাগী হয়ে যান। সুইডেনে গিয়ে এ বীর মুক্তিযোদ্ধা থিতু হয়েছিলেন। কয়েক বছর আগে তিনি মরণব্যাধি কর্কট রোগে আক্রান্ত হয়েছিলেন। চিকিৎসার পর তিনি অনেকটা সুস্থও হয়ে উঠেছিলেন। সত্য ও সুন্দরের পুজারী আ খ ম সুজাউল করিম দেশের মানুষের কাছে বিশেষ করে মৌলভীবাজারের মানুষের কাছে চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবেন যুগ যুগ।
এখানে উল্লেখ্য যে, সুইডেন প্রবাসী বীর মুক্তিযোদ্ধা একে সুজাউল করিম শনিবার (৩ এপ্রিল) সুইডেন স্থানীয় সময় সকাল সাড়ে ৭টা এবং বাংলাদেশ সময় সকাল সাড়ে ১১ টার দিকে সুইডেনের একটি হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭২ বছর। তিনি স্ত্রী, ১ মেয়ে ও ২ ছেলে সহ অসংখ্য আত্মীয়-স্বজন ও গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।
সুজাউল করিম এর গ্রামের বাড়ি মৌলভীবাজার সদর উপজেলার বড়কাপন গ্রামে। তার শৈশব কেটেছে শহরের মুসলিম কোয়ার্টারের পারিবারিক বাসায়। মৌলভীবাজারের মোস্তফাপুরে তার বাসা রয়েছে।তিনি দীর্ঘদিন ধরে সপরিবারে সুইডেনের স্টকহোমে বসবাস করে আসছেন। একে সুজাউল করিম ভালো গাইতেন। ভালো ফুটবলার ছিলেন। লেখালেখিও করতেন। ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন একে সুজাউল করিম। তিনি গান গেয়ে মানুষকে মুক্তিযুদ্ধে উদ্বুদ্ধ করতেন।
একে সুজাউল করিম ১৯৭০ সালে মৌলভীবাজার জেলা ছাত্রলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। মুক্তিযুদ্ধের পরে সুইডেনে চলে যান। তিনি মহান মুক্তিযুদ্ধ, অসাম্প্রদায়িক ও প্রগতিশীল চিন্তা ধারণ করতেন।
এদিকে এ.কে সুজাউল করিম এর মৃত্যুতে জনতার পাঠশালার পক্ষ থেকে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন বীর মুক্তিযোদ্ধা সৈয়দ নাছির উদ্দিন আহমদ, রাজনীতিবিদ আব্দুল খালিক, কানাডা প্রবাসী বীর মুক্তিযোদ্ধা শাহেদ বক্ত ময়নু, রাজনীতিবিদ হোসেন আহমদ, সাংবাদিক চৌধুরী দেলওয়ার হোসেন জিলন, মোহাম্মদী অফসেট প্রেসের সত্ত্বাধিকারী এম.এইচ.আর সামিম চৌধুরী, সমাজকর্মী পৃথ্বিশ তালুকদার, ব্যবসায়ী মনিরুজ্জামান খান সেলিম, কবি-সাংবাদিক সৌমিত্র দেব টিটু, মালঞ্চ বকু সেন্টারের সত্ত্বাধিকারী আব্দুল লতিফ, আইন শিক্ষার্থী কামরুন্নাহার রিয়া প্রমুখ। নেতৃবৃন্দ শোকবার্তায় মরহুমের রুহের মাগফেরাত কামনা করে শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমাবেদনা জ্ঞাপন করেছেন।************************************
বদরুল হক মনসুর, কাডিফ ইন ইউকে,
১১ ই এপ্রিল ২০২২ ইংরেজি,
***************************************